রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১০:৩৯ অপরাহ্ন

সিলেটে রাস্তা নির্মাণকাজ ও বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত জনজীবন

সিলেটে রাস্তা নির্মাণকাজ ও বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত জনজীবন


শেয়ার বোতাম এখানে

সিলেটে সকাল থেকে ভারি বৃষ্টির কারণে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন নগরবাসী। টানা আশ্বিনের বৃষ্টিতে, যানবাহন কম থাকায় সিলেটের সাধারণ মানুষ ও শিক্ষার্থীরা ভোগান্তিতে পড়েছেন । বৃষ্টিতে যানবাহন কম থাকায় পায়ে হেঁটেই অনেক শিক্ষার্থীদের স্কুলে যেতে দেখা যায়। দুর্ভোগে পড়েন অফিসগামী মানুষও। বৃষ্টির কারণে কাজে বের হতে না পারায় বিপাকে পড়েছেন খেটে খাওয়া মানুষ। এদিকে নগরজুড়ে সিটি করপোরেশনের চলমান উন্নয়ন কার্যক্রমে ভোগান্তি বাড়িয়ে দিয়েছে আরো কয়েকগুণ। সিলেটে দুদিন যাবত টানা বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতা বেড়েছে বেশ কিছু জায়গায়। এ ছাড়া একসঙ্গে নগরীর বেশ কয়েকটি রাস্তায় খোঁড়াখুঁড়ি ও নির্মাণকাজ চলমান থাকায় সৃষ্টি হয়েছে দুর্ভোগ। নির্মাণ সামগ্রী রাস্তার পাশে ফেলে রাখায় পথচারী ও যান চলাচলে সৃষ্টি হয়েছে প্রতিবন্ধকতা। বৃষ্টিতে নগরীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে গতকাল মঙ্গলবার সকালে দেখা যায়, নগরীর প্রতিটি ব্যস্ততম সড়কে দীর্ঘদিন ধরেই চলছে এসব উন্নয়ন কাজ। চলতি বছরের শুরুতে এসব নির্মাণকাজ শুরু হলেও শেষ হবে কবে কেউ জানে না। তবে সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে বর্ষার আগেই কাজ শেষ হবে বলা হলেও এসব নির্মাণকাজ খুব সহসা শেষ হবার কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। আর এ কারণে দিন দিন জন ভোগান্তি বেড়েই চলেছে। নগরীর পাঠানটুলা, মদিনা মার্কেট এলাকায় বৃষ্টির পানি জলাবদ্ধতায় রূপ নিয়েছে। এখানে এমনই রূপ নিয়েছে যে এলাকাবাসী এটাকে সিলেটের সমুদ্র সৈকত বলছেন। অনেক আগে শুরু হওয়া রিটেইনিং ওয়াল ও নতুন ড্রেন নির্মাণের কাজ এখনো শেষ হয়নি। এলাকার বাসিন্দা ছালিম মিয়া বলেন, মানুষ হাজার টাকা খরচ করে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত দেখতে যায়, সিটি করপোরেশনের কল্যাণে আমরা সিলেট শহরেই তা দেখতে পাচ্ছি। চলাচলে একটু অসুবিধা হচ্ছে কিন্তু সে কথা বলে লাভ কি, বড় কর্মকর্তারা কি আর সেটা বুঝবেন? কথায় ঠাট্টা করলেও ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছেন স্থানীয়রা। একই অবস্থা নগরীর প্রাণকেন্দ্র ও সিলেটের প্রধান বাণিজ্যিক এলাকা জিন্দাবাজারে। বিদ্যুতের পাতাল লাইন নির্মাণ কাজের দরুন ব্যস্ততম এ সড়কটিতে যানজট লেগেই থাকে। তার সঙ্গে টানা বৃষ্টিতে কাদা মাখামাখি অবস্থা। এতে ব্যাহত হচ্ছে যান ও পথচারী চলাচল। জিন্দাবাজার থেকে বারুতখানা অভিমুখী রাস্তা প্রায় ৪ মাসেও শেষ হয়নি বক্স কালভার্ট নির্মাণকাজ। পুরাতন ড্রেন ভেঙে নতুন করে নির্মাণের নামে মাটি ও নির্মাণ সামগ্রী রাখা হয়েছে রাস্তার ওপর। এতে রাস্তার প্রশস্ত কমে এসেছে অর্ধেকে। ফুটপাত ভাঙা আর রাস্তার পাশে প্রতিবন্ধকতা থাকায় রাস্তার মাঝখান দিয়েই হাঁটতে হয় পথচারীদের। এ ছাড়া নগরীর বারখলা, কায়েস্থরাইল, খোজারখলা, ভার্থখলা, শিবগঞ্জ, মিরাবাজার, জেলরোড়, জিন্দাবাজার, পূর্ব জিন্দাবাজার, পুরান লেন, বন্দরবাজার, সোবহানিঘাট, আম্বরখানাসহ প্রায় সবকটি রাস্তায় চলছে অপরিকল্পিতভাবে উন্নয়ন কাজ। এ প্রসঙ্গে কথা হয় সানিয়া বেগম নামের এক পথচারীর সঙ্গে। মেয়েকে স্কুলে দিতে এসে বিপাকে পড়া এই গৃহিণী জানান, ৫ মিনিটের হাঁটা পথ রিকশায় করে আধা ঘণ্টায় এসেছেন। রাস্তায় কাদা আর ফুটপাত ভাঙা হওয়ায় হেঁটে আসতে পারেননি। তিনি বলেন, প্রতিদিনই বাচ্চার স্কুলে আসতে দেরি হচ্ছে রাস্তার এই দুরবস্থার কারণে। উন্নয়ন কাজ চলুক এতে আমাদের আপত্তি নেই, তবে এর তো শেষ আছে, নাকি বছরজুড়ে এভাবেই চলতে থাকবে? তবে সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বিধায়ক রায় চৌধুরীর বলেন, বর্ষা আসলে একটু ভোগান্তিতো হবেই। তবে আমরা চেষ্টা করছি তা যাতে কম হয়। কাজগুলো যাতে দ্রুত শেষ হয়। নির্দিষ্ট সময় বলতে না পারলেও খুব তাড়াতাড়ি শেষ হবে বলে জানান এই কর্মকর্তা। আর এসব নির্মাণকাজ শেষ হলে নগরীতে জলাবদ্ধতা থাকবে না বলেও মত দেন তিনি। তবে এসবে আশ্বস্থ হতে পারছেন না সিলেটের সাধারণ মানুষ। তাদের ধারণা সিটি করপোরেশনের অপরিকল্পিত কার্যক্রমের কারণে ভুগতে হচ্ছে মানুষকে। যা থেকে খুব সহসা মুক্তি মিলছে না বলে মনে করেন অনেকে। আবহাওয়া অধিদফতর সুত্র থেকে জানাযায় , আগামী কয়েকদিনই সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি হবে। মৌসুমী বায়ুর প্রভাবেই এমনটা ঘটবে বলে আবহাওয়া অধিদফতরের খবরে বলা হয়। সিলেটে মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে আগামী কয়েকদিন বৃষ্টি হবে। অক্টোবর মাসের প্রথম সপ্তাহে এই বৃষ্টি থাকতে পারে। গতসোমবার রাত থেকেই সিলেটে চলছে গুড়িগুড়ি বৃষ্টি। সেই বৃষ্টি অব্যাহত আছে গতকাল মঙ্গলবার সারাদিনও। বৃষ্টি কখনো বেড়েছে, কখনো থেমেছে। তবে সেই থামাটাও খুব বেশিক্ষণের জন্য নয়। সেই সঙ্গে বেড়েছে শীতের তীব্রতাও। মঙ্গলবারের বৃষ্টিতে অনেকটা বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে নগরীর জনজীবন। সকাল থেকেই বাইরে কাজে বের হওয়া লোকজন আর শিক্ষার্থীরা পড়েছেন বিপাকে। যানবাহন সংকটে অনেককেই হেঁটে গন্তব্যে যেতে দেখা গেছে। কেউ কেউ দেরিতে পৌঁছেছেন গন্তব্যে। সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে নিম্ন আয়ের মানুষকে। ফুটপাতের হকাররা বৃষ্টিতে নিজের পসরা সাজিয়ে বসতে পারেননি। যারা সুরক্ষিৎ হয়ে পসরা সাজিয়েছেন, তারাও পাচ্ছেন না ক্রেতা। কারণ বৃষ্টিতে পথঘাট প্রায় ফাঁকা।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর




themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin