শনিবার, ৩১ অক্টোবর ২০২০, ০১:১০ অপরাহ্ন



সিলেটে লকডাউনেও সিএনজি অটোরিকশা চালকদের নৈরাজ্য

সিলেটে লকডাউনেও সিএনজি অটোরিকশা চালকদের নৈরাজ্য


আহমেদ জামিল:
করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে সিলেট জেলা লকডাউন করা হলেও বন্ধ হয়নি সিএনজি চালিত অটোরিকশা চলাচল। বাস মাইক্রোবাসসহ বেশিরভাগ গণপরিবহণ চলাচল বন্ধ থাকায় সিএনজি অটোরিকশায় করোনার ঝুঁকি নিয়েও চলাচল করছে মানুষ।

এই সুযোগে চালকদের নৈরাজ্য বেড়েই চলছে। জনপ্রতি দিগুণের চেয়েও বেশি ভাড়া আদায় করছেন চালকরা। ভাড়া নিয়ে নৈরাজ্যের কারণে চালকদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছেন সাধারণ যাত্রীরা। ফলে করোনাকালে চলাচলের ঝুঁকির সাথে বেড়ে দুর্ভোগও।

এদিকে গণপরিবহণ চলাচলে সরকারি নির্দেশনা বাস্তবায়নে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। তবে সিলেট নগরের কিছু এলাকায় পুলিশের অভিযান চোখে পড়লেও শহরের বাইরে নিয়ন্ত্রণহীন যান চলাচল। ঢালাওভাবে চলাচল করছে অটোরিকশাসহ ছোট ছোট গণপরিবহণগুলো।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণের ঝুঁকি মোকাবেলায় গত ১১ এপ্রিল থেকে সিলেট জেলাকে লকডাউন ঘোষণা করে প্রশাসন। জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, পরবর্তী নির্দেশ দেওয়া না পর্যন্ত জেলায় জনসাধারণের প্রবেশ ও প্রস্থান নিষিদ্ধ করা হলো।

লকডাউন চলাকালে জাতীয় ও আঞ্চলিক সড়ক-মহাসড়ক এবং নৌপথে জেলা ও উপজেলায় প্রবেশের পথগুলো বন্ধ থাকবে। একইসাথে এক এলাকা থেকে অন্য এলাকায় চলাচলও বন্ধ থাকবে। এর আগে গত ২৬ মার্চ থেকে সারাদেশে গণপরিহণ বন্ধের ঘোষণা দেয় সরকার।

সম্প্রতি ঈদকে ঘিরে গণপরিবহণ চলাচলে আরও কঠোর নিষেধাজ্ঞা জারি করে সরকার। কিন্তু সরকারি নিষেধাজ্ঞা ও লকডাউন অমান্য করে সিলেটে অবাধে চলছে সিএনজি চালিত অটোরিকশা। এই সুবাধে যাত্রীদের কাছ থেকে দিগুনের চেয়েও বেশি ভাড়া হাতিয়ে নিচ্ছে। অন্যান্য গণপরিবহণ না থাকায় যাত্রীদের বাধ্য হয়ে গুনতে হচ্ছে অতিরিক্ত টাকা।

সিলেট মহানগর ছাড়াও সিলেট-জকিগঞ্জ, সিলেট-গোয়াইনঘাট, সিলেট-বিশ্বনাথসহ বিভিন্ন আঞ্চলিক সড়ক ও মহাসড়কে সিএনজি অটোরিকশা চালকদের এমন নৈরাজ্য চলছে। বেসরকারি চাকরিজীবি জাকারিয়া হোসেন জানান, গণপরিবহণ বন্ধ থাকায় জরুরি প্রয়োজনে বাধ্য হয়ে সিএনজি অটোরিকশায় চলাচল করতে হচ্ছে।

লকডাউনের সুযোগে অটোচালকরা ২০ টাকার জায়গায় ৩০ টাকা নিচ্ছে। কোথাও আবার দিগুণ ভাড়া গুনতে হচ্ছে। তাদের নৈরাজ্যে অসহায় হয়ে পড়েছে মানুষ।

একই ধরণের অভিযোগ জকিগঞ্জ থেকে আসা যাত্রী মাহফুজ আহমদ চৌধুরীর। তিনি জানান, সরাসরি সিএনজি না যাওয়ায় দীর্ঘ রাস্তায় কয়েকবার গাড়ি বদল করতে হয়। এই সুযোগে ভাড়া ৫০ টাকার ১২০ থেকে ১৫০ টাকা পর্যন্ত গুনতে হচ্ছে। লকডাউনের কারণে ঝুঁকির মধ্যেও অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে মানুষ চলাচল করছে।

সিলেট জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আমিনুল ইসলাম জানান, লকডাউন চলাকালে খুব জরুরী প্রয়োজন ছাড়া কোনো সিএনজি অটোরিকশাকে চলাচল করতে দেওয়া হচ্ছে না। তারপরও মানুষ ঝুঁকি নিয়ে পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে চলাচল করছে। বিশেষ কারণ ছাড়া সিএনজি অটোরিকশায় যাত্রী পরিবহণ বন্ধে পুলিশের অভিযান অব্যাহত আছে বলে জানান তিনি।

এএসপি আমিনুল ইসলাম আরও জানান, সিএনজি অটোরিকশার ভাড়া নির্ধারিত না থাকায় চালকরা ইচ্ছেমত আদায় করছে। ভাড়ার নির্ধারিত তালিকা না থাকায় তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া যাচ্ছে না।


সমস্ত পুরানো খবর




themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin