শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল ২০২১, ০৮:৩০ পূর্বাহ্ন

সিলেটে লকডাউনের তৃতীয় দিন: স্বাস্থ্যবিধিতে ‘ডেমকেয়ার’ ভাব!

সিলেটে লকডাউনের তৃতীয় দিন: স্বাস্থ্যবিধিতে ‘ডেমকেয়ার’ ভাব!


শেয়ার বোতাম এখানে
  • 19
    Shares

 

মবরুর আহমদ সাজু

আজ চলছে লকডাউনের তৃতীয় দিন। কিন্তু করোনার উচ্চ ঝুঁকির সিলেটে লকডাউন মানাতো দূরের কথা স্বাস্থ্যবিধি মানতেই নারাজ মানুষ। করোনার ঊর্ধ্বগতিতে সরকার ঘোষিত এক সপ্তাহের টানা লকডাউন শুরু হয়েছে গত সোমবার থেকে। লকডাউন বিষয়ে সরকারি আদেশ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছেন সরকার। জরুরি সেবা বলতে যেগুলো বুঝায় সেগুলো ছাড়া বাকি সবকিছুই পরবর্তী নির্দেশ না আশা পর্যন্ত বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে। করোনা সংক্রমণ রোধে সরকার নির্দেশিত নিষেধাজ্ঞার দ্বিতীয় দিনেও স্বাভাবিক যানচলাচল। এদিন প্রথম দিনের চেয়ে নগরে যানবাহন ও মানুষের উপস্থিতি বেড়েছে। সব বাধাকে উপেক্ষা করে সরকারি আদেশকে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে সাধারণ মানুষের চলাচল বেশ উল্লেখযোগ্য লক্ষ্য করা গেছে। কেউ অফিসগামী, কেউ জরুরি সেবা নিতে, আবার নানাকাজে পায়ে হেঁটে মানুষ ঘর থেকে বের হচ্ছেন। গণপরিবহন বন্ধ থাকালেও কিছু গণপরিবহন রাস্তায় যাত্রী উঠাতে দেখা গেছে। গণপরিবহণ ছাড়া অন্যান্য যানবাহন স্বাভাবিকভাবেই চলেছে সড়কে। যেন করোনা স্বাস্থ্যবিধিতে জনসাধারণের ‘ডমকেয়ার’ ভাব।

মঙ্গলবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত নগরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট ঘুরে দেখা গেছে, দোকানপাট বন্ধ থাকলেও এসব দোকানের সামনে উপস্থিতি ছিল বিক্রেতা ও কর্মীদের। দুপুর ১২টায় বন্দরবাজার পয়েন্টে গিয়ে দেখা যায়, অনেক মানুষ বাজার করতে বের হয়েছেন। গণপরিবহন বন্ধ থাকার কথা থাকলেও সিএনজিচালিত অটোরিকশা দিয়ে চলছে যাত্রী পরিবহণ। এদিন রাস্তায় ব্যক্তিগত গাড়ি ও মোটরসাইকেলের সংখ্যা বাড়তে দেখা যায়। রাস্তায় মানুষের সংখ্যা বাড়লেও স্বাস্থ্যবিধি মানায় অনাগ্রহ ছিল বেশিরভাগের। অনেকেই মাস্ক নিয়ে বের হলেও সেটা ছিল হাতে-পকেটে বা থুঁতনিতে। তবে মঙ্গলবার দুপুরে লকডাউনের নিয়ম অমান্যকারীদের সিলেট জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জাহাঙ্গির আলমের নেতৃত্বে নগরীর জিন্দাবাজার রাজা ম্যানশনে অভিযান চালিয়ে সকল দোকানপাট বন্ধ করে দিতে দেখা যায়। বাড়তি নজর রাখছেন আইনশৃঙ্খলাবাহিনীও। সব মিলিয়ে এমন ঢিলাঢাল লকডাউনে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হচ্ছে জনসাধারণদের মাঝে।

মঙ্গলবার সকালে বন্দর বাজার কালঘাট এলাকায় যানজট লক্ষ্য করা গেছে। মদিনা মার্কেট থেকে মালামাল নিতে বন্দর বাজার আসেন মইনুল ইসল্মা আবীর। তার সঙ্গে দেখা হয় কোট পয়েন্টে। তিনি বলেন, অনেকই এখন কাজ করছে। কয়জনে মানে লকডাউন। শুধু গাড়ি বন্ধ, মানুষ তো প্রয়োজনে ঠিকই বাইরে যাচ্ছে। আমার কাজ আছে যেকোনভাবে আমাকে বের হতে হয়েছে। লকডাউনে গরীবদের কষ্ট ছাড়া আর কিছু নয়। তিনি বলেন, কয়জন মানছেন লকডাউন? একদিকে খুলে অন্যদিকে সব বন্ধ রেখে তো লকডাউন হয় না।

স্কুল পড়ুয়া রায়হান আর মুন্না দুই বন্ধু জল্লারপর মসজিদ রোড দিয়ে হাঁটাহাটি করছে। গত বছর লকডাউনে ঘর থেকে বের না হলেও এবার তাদের কাছে লকডাউন মনে হচ্ছে না। কেনো মনে হচ্ছে না প্রশ্ন করা হলে মুন্না বলেন, গতবার অনেক ভয় ছিল বাবা-মা বাসা থেকে বের হতে দেয়নি। আজকে লকডাউন নিয়ে বাবা-মা কিছু বলেনি। আমাদের কাছেও লকডাউনের মতো মনে হচ্ছে না।

এদিকে সকল ধরণের খাবার হোটেল কিংবা রেস্টুরেন্টে বসে খাওয়া নিষেধ রয়েছে। প্রয়োজনে পার্সেল নিয়ে বাসায় খেতে বলা হয়েছে। অথচ খোলা জায়গায় ঝট বেধে একসঙ্গে অনেক মানুষ খাওয়ার দৃশ্যও দেখা গেছে। এছাড়া স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করে কেউ কেউ খোলা জায়গায় অনেকে মিলে আড্ডা দিচ্ছেন এমন দৃশ্য মিলেছে যেখানে-সেখানে। বিকেল বেলা দেখা যায় করোনা হাসপাতাল খ্যাত শহীদ সামসুদ্দিনের পাশে সিলেট সরকারী আলিয়া মাদ্রাসার মাঠে খেলাধুলা করছেন অনেকে।

সুরমা মার্কেট পয়েন্টে মোড়ে টিসিবির ভ্রাম্যমাণ বিক্রয় কেন্দ্রে গেলে দেখা যায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে পণ্য কেনার কথা বললেও বাস্তবে তার উল্টো স্বাস্থ্যবিধি না মেনে ঘেঁষাঘেঁষি করে দাঁড়িয়ে পণ্য কিনছে।

এদিকে সংক্রমণের হার বৃদ্ধি পেলে লকডাউনের সময় বাড়তে পারে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে তবে ‘সংক্রমণের হারের ওপরই নির্ভর করবে লকডাউন বাড়বে কী না।’ তবে লকডাউনের সময় বাড়ানো হবে কিনা আগামীকাল বৃহস্পতিবার সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।

অপরদিকে লকডাউনের সকল নিয়ম ভেঙ্গে বিক্ষোভ করেছেন সিলেটের ব্যবসায়ীরা। স্বাস্থ্যবিধি মেনে ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার দাবিতে তারা মঙ্গলবার দুপুরে বিক্ষোভ মিছিল, সমাবেশ ও মানববন্ধন করেছে। করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে সোমবার থেকে সিলেটসহ সারাদেশে শুরু হয়েছে এক সপ্তাহের লকডাউন। এ সময়ে সবধরনের সভা-সমাবেশ ও জনসমাগম নিষিদ্ধ করা হয়েছে। কিন্তু এই নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে সিলেট নগরীর জিন্দাবাজারস্থ শুকরিয়া মার্কেটের সামনে থেকে ‘সিলেটের সর্বস্তরের ব্যবসায়ীবৃন্দ’র ব্যানারে মিছিল বের করেন ব্যবসায়ীরা।

মিছিল নিয়ে কোর্ট পয়েন্টে গিয়ে মানববন্ধন করেন তারা। প্রায় আধঘন্টা মানববন্ধন চলে। এরপর ব্যবসায়ীরা মিছিল নিয়ে জিন্দাবাজার পয়েন্টে এসে সমাবেশ করেন। সমাবেশে বক্তারা বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে ব্যবসায়ীদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। করোনার কারণে লকডাউন থাকায় গেল বছরও ঈদে ব্যবসায়ীরা ব্যবসা করা থেকে বঞ্চিত হন। ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ বলেন, দেশের করোনা পরিস্থিতি ও সাধারণ মানুষের কথা চিন্তা করে প্রায় একবছর তারা ব্যবসায় করা থেকে বিরত থাকেন। এখন আবার লকডাউন দিয়ে ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দিলে ব্যবসায়ীদের পথে বসতে হবে। পরিবার নিয়ে না খেয়ে মরতে হবে। তাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার দাবি জানান তারা।



শেয়ার বোতাম এখানে
  • 19
    Shares

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin