বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২, ০৫:৩৪ পূর্বাহ্ন


সিলেটে সাংবাদিকের আকুতি ‘আমার মায়ের জন্য আইসিইউ হবে?

সিলেটে সাংবাদিকের আকুতি ‘আমার মায়ের জন্য আইসিইউ হবে?


শেয়ার বোতাম এখানে

স্টাফ রিপোর্ট:

আমার মায়ের জন্য কোনো আইসিইউ হবে? কেউ কি একটু সাহায্য করবেন? সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এমন স্ট্যাটাস দিয়ে অসহায়ত্বের কথা তুলে ধরেছিলেন ইংরেজি দৈনিক ডেইলি স্টারের ক্রীড়া প্রতিবেদক সিলেটের একুশ তাপাদার। রোববার রাত ৩টার দিকে এমন স্ট্যাটাসের ঘন্টাখানেক মারা যান এই সাংবাদিকের মা লুৎফা বেগম তাপাদার (৭৫)।
লুৎফা বেগম কয়েকদিন ধরে শ্বাসকষ্টসহ বার্ধক্যজনিত বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন।

জানা যায়, রোববার রাত ১০টার দিকে লুৎফা বেগমকে অসুস্থতার জন্য সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। এরপর রাত ২টার দিকে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে আইসিইউ সেবার প্রয়োজন দেখা দিলে ওসমানী হাসপাতালে আইসিইউতে সিট খালি পাওয়া যায়নি। এরপর নগরীর বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতাল-ক্লিনিকে খোঁজ করা হলেও কোথাও আইসিইউ সেবা পাওয়া যায়নি। সোমবার ভোর ৪টার দিকে ওসমানীতেই মারা যান লুৎফা বেগম। 

এরপর সোমবার জোহরের নামাজের পর বিয়ানীবাজারে গ্রামের বাড়িতে লুৎফা বেগমের জানাযা ও দাফন সম্পন্ন হয়েছে। মরহুমা লুৎফা বেগম নগরীর উপকন্ঠ বটেশ্বরে থাকতেন। একুশের বাবা যুক্তরাজ্যে থাকাকালীন অবস্থায় আগেই মারা যান।

এদিকে সাংবাদিক একুশ তপাদার সোমবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে ফেইসবুকে আরেকটি আবেগঘন স্ট্যাটাস দেন। তিনি লিখেন,

“আমি ব্যর্থ সন্তান তাই আজ আমার পৃথিবী শূন্য। জীবনের শ্রেষ্ঠ আশ্রয় আমি হারিয়ে ফেলেছি। অক্সিজেন লাগানোর পরও আমার মা শান্তি পাচ্ছিল না। বারবার বলছিল, ‘কি দিলি রে বাবা, আরাম তো লাগে না’, অক্সিজেনে আর কাজ হচ্ছিল না। আপেল খাবে, আমি আপেল কেটে তিন টুকরো মুখে দিলাম। এই আমার মায়ের শেষ খাওয়া। বলল, ‘সকালে নরম খিচুড়ি খাব।’ বললাম, ‘মিতুকে বলছি বানিয়ে রাখবে’। আমার মায়ের আর নরম খিচুড়ি খাওয়া হয়নি। আমি আর কোনদিন মনে হয় না নরম খিচুড়ি খেতে পারব।

আমার ছেলেটাকে দেখার জন্য উনার মন ব্যাকুল হয়েছিল। আমার মা আমার ছেলের নাম দিয়েছে আয়ান। আয়ান যাবে বলে গাছের পাকা ডালিম পাড়েনি, আয়ান গিয়ে পাড়বে। আমার মায়ের প্রিয় আয়ান গিয়ে বলল, ‘বাবা, দাদু কথা বলে না’।

আমার মায়ের হোয়াটসঅ্যাপের ডিসপ্লে ছবিতে নাতির ছবি। এখন আর দাদু-নাতির ভিডিও কলে খেলা হবে না। আমার মা আর কোনদিন কথা বলবে না। অস্থির হলে আমি আর কোনদিন কাউকে ফোন করে মন হালকা করতে পারব না। আমার জীবনটাই আসলে বদলে গেছে।”


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin