মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:৩১ অপরাহ্ন


সিলেট জুড়ে পুলিশের টর্নেডো অভিযান: তিনদিনে গ্রেফতার দুই শতাধিক

সিলেট জুড়ে পুলিশের টর্নেডো অভিযান: তিনদিনে গ্রেফতার দুই শতাধিক


শেয়ার বোতাম এখানে

সুলতান সুমন: সিলেট জুড়ে চলছে পুলিশের নিয়মিত অভিযান। এ অভিযানে গত তিনদিনে গ্রেফতার করা হয়েছে দুই শতাধিক ব্যক্তিকে। পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা একে ‘নিয়মিত অভিযান’ বললেও, বিএনপি বলছে, নিয়মিত নয়, এটি বিএনপির বিরুদ্ধেই সাড়াশি ও টর্নেডো অভিযান। ভোটের মাঠ থেকে বিএনপিকে সরিয়ে রাখতেই সরকারের প্রেসক্রিপশন বাস্তবায়ন করছে পুলিশ; অভিযোগ তাদের।
এদিকে এ অভিযানের ফলে সিলেটের ১১ থানাসহ এসএমপি’র ৬ থানা মিলে গত রোববার থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত ২২০ জনকে আটক করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। বিএনপির দাবি, প্রতিদিনই বিএনপি ও জামায়াতের নেতাকর্মিদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে গ্রেফতার ও তল্লাশীর নামে হয়রানি চালাচ্ছে পুলিশ। নেতাকর্মিদের বাড়িতে না পেয়ে তাদের মা-বাবাকে হুমকি দিয়ে বলা হচ্ছে ৩০ তারিখ যেন কেউ ভোট কেন্দ্রে ভোট দিতে না যায়।
সূত্র জানায়, যাদের আটক করা হয়েছে তাদের মধ্যে সিলেট মহানগর পুলিশের কতোয়ালি, দক্ষিণ সুরমা, মোগলাবাজার, শাহপরাণ (রহ.), জালালাবাদ ও বিমান বন্দর থানা থেকে ১০১ জন রয়েছেন। এসএমপি পুলিশের এই ৬ থানায় গত রবিবার ২২ জন, সোমবার ৪৩ জন ও মঙ্গলবার ৩৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়। তাছাড়া সিলেটের বিয়ানীবাজার, গোলাপগঞ্জ, কানাইঘাট, জৈন্তাপুর, গোয়াইনঘাট, কোম্পানীগঞ্জ, ওসমানীনগর, বালাগঞ্জ, ফেঞ্চুগঞ্জ, বিশ্বনাথ ও জকিগঞ্জ এই ১১ থানা থেকে ১১৯ জনকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে নিয়মিত মামলা ও গ্রেফতারী পরোয়ানার আসামীরাও রয়েছে বলে দাবি করেছে পুলিশ। তবে বিএনপি ও জামায়াতের নেতারা দাবি করছেন গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে রয়েছেন তাদের দেড় শতাধিক নেতাকর্মী।

 

পুলিশ সূত্র জানায়, গত তিন দিনে যাদেরকে আটক করা হয়েছে তারা সবাই নিয়মিত মামলা ও গ্রেফতারি পরোয়ানার আসামী। তাছাড়া আরো কিছু রয়েছেন যাদের বিরুদ্ধে তদন্তে বিভিন্ন নাশকতার ঘটনার সাথে জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া গেছে। তাই তাদেরকে গ্রেফতার করে ঐ ঘটনার মামলা ঢুকিয়ে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সিলেট নগরী থেকে এসমএপির ৬ টি থানায় যে ৩৬ জন আটক করা হয়েছে। তাদের মধ্যে কোতয়ালী থানায় ৭ জন, দক্ষিণ সুরমা থানায় ৭ জন , মোগলাবাজার থানায় ৩ জন, শাহপরাণ (রহ.) থানায় ৭ জন , জালালাবাদ ৭ ও বিমান বন্দর থানায় ৮ জনকে আটক করা হয়েছে। এদের মধ্যে রয়েছেন, নিয়মিত মামলায় গ্রেফতার ২৫ জন ও গ্রেফতারী পরোয়ানায় গ্রেফতার ৫ জন। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে রয়েছেন, সিলেট শাহপরাণ (রহ.) থানা থেকে ছাত্রদল নেতা ইমু। তাকে মঙ্গলবার দুপুরে গ্রেফতার করা হয়। আর সোমবার রাতে জাহানপুর থেকে গ্রেফতার করা হয় ছাত্রদল নেতা খোরশেদ ও বালুচর থেকে গ্রেফতার করা হয় শাহজাহানকে। বিষয়টি নিশ্চিত করেন শাহপরাণ (রহ.) থানার অফিসার ইনচার্জ আখতার হোসেন। তাছাড়া দক্ষিণ সুরমা থেকে গ্রেফতার করা হয় ছাত্রদল নেতা মকছুদুল করিম নুহেল, বিএনপি নেতা গৌছ উদ্দিন, বরইকান্দি ইউপি সদস্য এনাম, বিএনপি নেতা আইয়ুব আলী, ছালিক আহমদ, কামাল, সার মিয়া, যুবদল নেতা দেলোয়ার হোসেন, তাজুল সহ আরো অনেকেই। এর আগে রবিবার ও সোমবার গ্রেফতার করা হয় সিলেট যুবদল নেতা মামুনুর রশিদ ও মহানগর বিএনপি’র প্রচার সম্পাদক শামিম মজুমদারকে।

 

সিলেট বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের একাধিক নেতকর্মী জানান, তাদের উপর প্রতিনিয়তই চলছে পুলিশী নির্যাতন। তাদেরকে গ্রেফতার করতে পুলিশ নিয়মিত অভিযান চালাচ্ছে বাসা বাড়িতে। বাসায় না পেয়ে বাবা-মা কে অকথ্য বাসায় গালিগালাজ ও হুমকি প্রদান করছে পুলিশ। আর অনেক সময় তাদেরকে বাসায় না পেয়ে তাদের ভাইকে গ্রেফতারের হুমকিও প্রদান করে যাচ্ছে পুলিশ।

 

তারা আরো জানান, সোমবার থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত যাদের বাড়িতে অভিযান পরিচালনা করেছে পুলিশ। তাদের মধ্যে রয়েছেন, বিএনপি নেতা ও সিলেট সিটি কাউন্সিলর ফরহাদ চৌধুরী শামিম, সাবেক প্যানেল মেয়র ও মহানগর বিএনপি নেতা রেজাউল হাসান কয়েস লোদি, দক্ষিণ সুরমা উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি শাহবুদ্দিন আহমদ, যুবদল নেতা মতি মির্জা ও সিলেট জেলা ছাত্রদলের সাবেক সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সোহেল ইবনে রাজা সহ আরো বিপুল পরিমাণ নেতা কর্মীর বাড়িতে পুলিশ অভিযান চালিয়েছে। পুলিশের এসকল অভিযানে সকলের পরিবারে আতঙ্ক বিরাজ করছে। নেতাকর্মীরা আরো জানান, নির্বাচনের মাঠে তারা উপস্থিত না থাকার জন্য তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় গায়েবি মামলা দাখিলও করা হচ্ছে। তাছাড়া সরকার দলীয় নেতাকর্মীরা নানা ধরণের নাটক সাজিয়ে ইতিপূর্বে এসএমপি’র বিভিন্ন থানায় তিনটি মামলা দায়ের করা হয়েছে, এর মধ্যে শাহপরাণ(রহ.) থানায় ৫৯ জনের বিরুদ্ধে একটি নাশকতা মামলা, একই অপরাধে দক্ষিণ সুরমা থানায় ৫৩ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা, কোতয়ালী থানায় গত রবিবার রাতে নগরীর কানিশাইল এলাকায় রিক্সাযোগে নৌকার প্রচারণায় বাঁধা প্রদান, মারপিট এবং রিক্সা থেকে মাইক খুলে নেওয়ার সময় ককটেল বিস্ফোরনের ঘটনায় ঐদিন রাতেই সিলেট কোতোয়ালী থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। ঘটনার শিকার সিলেটের নাইওরপুল এলাকার শাহাব উদ্দিনের ছেলে ফাহিম আহমদ হামিম রবিবার রাতে বিএনপির ১২০ জন নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ করে এজাহার দাখিল করেন।
অপরদিকে গ্রেফতার আতঙ্কে ভুগছেন সিলেট-১ আসনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও বিএনপির প্রার্থী খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির। দলীয় নেতা-কর্মীদের পাশাপাশি পুলিশ তাকেও গ্রেফতারের চেষ্টা চালাচ্ছে বলে জানিয়েছেন তিনি। গত সোমবার (২৪ ডিসেম্বর) বিকালে এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন তিনি। সংবাদ সম্মেলনে খন্দকার মুক্তাদির বলেন, রবিবার থেকে পুলিশ তাকে কয়েক দফায় গ্রেফতারের চেষ্টা করেছে। কিন্তু সভা-সমাবেশ ও প্রচারণায় মানুষের ব্যাপক উপস্থিতি থাকায় পুলিশ গ্রেফতার করতে পারেনি। পুলিশ বিএনপি নেতা-কর্মীদের গ্রেফতার ও হয়রানি করছে। গত দুই দিনে ১৮ নেতা-কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আওয়ামী লীগের পায়ের তলায় মাটি নেই। নির্বাচনে পরাজয়ের শঙ্কায় প্রশাসনকে ব্যবহার করে বিএনপি নেতা-কর্মীদের গ্রেফতার ও হয়রানি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন তিনি। সংবাদ সম্মেলনে সিলেট মহানগর বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক আজমল বখত সাদেক, জেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি এ্যাড. সাঈদ আহমদ প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

 

নেতাকর্মীদের গ্রেফতার ও পুলিশী অভিযানের বিষয়ে সিলেট জেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ দৈনিক শুভ প্রতিদিনকে জানান, গত কয়েকদিন থেকে নেতাকর্মীদের বাড়িতে থাকতে দিচ্ছে না পুলিশ। মামলা ও গ্রেফতারী পরোয়ানা ছাড়াও তুফান ও টুর্নেডো গতিতে গ্রেফতার করছে পুলিশ। তাছাড়া নেতা কর্মীদের বাসায় না পেয়ে বাবা-মা কে অকথ্য বাসায় গালিগালাজ ও হুমকি প্রদান করছে পুলিশ। আর অনেক সময় তাদেরকে বাসায় না পেয়ে তাদের ভাইকে গ্রেফতারের হুমকিও প্রদান করে যাচ্ছে পুলিশ। এমন অবস্থায় বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা গ্রেফতার আতঙ্ক ও চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছেন।

 

এ ব্যাপারে সিলেট বিভাগীয় ডিআইজি কামরুল আহসান দৈনিক শুভ প্রতিদিনকে জানান, যাদের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা ও গ্রেফতারী পরোয়ানা রয়েছে তাদেরকে গ্রেফতারের জন্য পুলিশের নিয়মিত অভিযান অব্যাহত। আর মামলা ছাড়া যাদের গ্রেফতার করা হচ্ছে এদের বিরুদ্ধেও বিভিন্ন নাশকতার সাথে সংশ্লিষ্টতা থাকার অভিযোগ থাকায় তাদের আটক করা হচ্ছে।

 

সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (মিডিয়া) জেদান আল মুসা দৈনিক শুভ প্রতিদিনকে জানান, এ পর্যন্ত যতজনকে আটক করা হয়েছে সবার বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা ও গ্রেফতারী পরোয়ানা রয়েছে। আর যাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন নাশকতার সাথে সংশ্লিষ্টতা থাকার অভিযোগ তদন্তে পাওয়া যাচ্ছে তাদেরও আটক করা হচ্ছে। তবে কোন নিরিহ লোককে হয়রানী না করা ও কারো কথায় কাউকে গ্রেফতার না করতে পুলিশ যথেষ্ট সর্তক রয়েছে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin