বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ১১:১৫ অপরাহ্ন


সিলেট বইমেলা: ভালোবাসা দিবস ও বসন্ত বরণের অপেক্ষায় তরুণ তরুণীরা

সিলেট বইমেলা: ভালোবাসা দিবস ও বসন্ত বরণের অপেক্ষায় তরুণ তরুণীরা


শেয়ার বোতাম এখানে

 কর্মজীবী পাঠকের আনাগোনায় সরব সন্ধ্যা

স্টাফ রিপোর্ট:
কেমন করে দ্রুত পাল্টে যাচ্ছে শীতের দিনগুলো। মাঝেমাঝে ঝোড়ো ব্যাটিং চালালেও শীত প্রায় বিদায় নেওয়ার মুখে। আসছে বসন্তকাল। বসন্ত আসবে দু’দিন পর। অথচ সপ্তাহজুড়েই বসন্ত হাওয়া। হাওয়ায় খানিক শীতের আধিক্য বটে, তবে তাতে ফাগুনের আগমনের বার্তাই মিলছে। মাঘের শেষ বেলা এখনও, অথচ ফাগুন হাওয়ায় দোল খাচ্ছে বইমেলা। মেলায় এখন আনন্দজোয়ার। কাল বাদে পরশুই বসন্তবরণ। পরের দিন বিশ্ব-ভালোবাসা দিবস। এ দু’দিনের অপেক্ষার তর যেন সইছেই না। প্রস্তুতি চলছে আরও আগে থেকেই। এখন যেন শুধু স্বাগত জানানোর পালা। পাঠক, লেখক, প্রকাশক, আয়োজক সবার মধ্যেই বসন্তবরণ আর ভালোবাসা দিবসের তাড়া।
প্রাণের মেলার দ্বিতীয় সপ্তাহ চলছে। বসন্তবরণ এবং ভালোবাসা দিবসের মধ্য দিয়েই মধ্য সময়ে গড়াবে মেলা। সত্যিকার অর্থে মেলা জমে ওঠে ঠিক এই সময় থেকেই। এই দুই দিবসেই মূলত মেলার রূপ বদলে যায়। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে সাহিত্যপ্রেমী তরুণ-তরুণীরা দিন দুটিকেই বিশেষ উপলক্ষ মানছে। সামনে বসন্ত বরণ ভালোবাসা দিবসের হাতছানি। আর তাতেই তারুণ্যের উপচে পড়া ঢেউ। সে ঢেউয়ে মেলার কূল ভাঙা অবস্থা প্রায়। এবারও তাই হবে বলে মনে করছেন আয়োজকরা। মেলা পরিচালনা কমিটির সদস্য সৌরজিৎ বলেন, ‘এবারে বইমেলা সেলফি প্রতিযোগিতা থাকায় শুরু থেকেই জমে ওঠেছে। রাজনৈতিক, সামাজিক অস্থিরতাও নেই। সবমিলে এবারে আমরা অধিক আশাবাদী।’ এছাড়া শিশুপ্রহর ও শিক্ষার্থীদের নিয়ে আবৃতি প্রতিযোগিতায়। মেলার কাঠোমোও পরিবর্তন এসেছে।
কবি পুলিন রায় বলেন, ‘মূলত মেলা মধ্য সময় থেকেই বিশেষ প্রাণ পায়। বিশেষ করে গত কয়েক বছর ধরে আমরা দেখে আসছি, বসন্তবরণ এবং ভালোবাসা দিবসে মানুষের তিল ধরার ঠাঁই থাকে না। এই সময় থেকে তারুণ্যের যে ঢেউ লাগে তাতে শেষ পর্যন্ত জোয়ার থাকে মেলায়। এবারও তাই আশা করছি।
স্ব-অ প্রকাশক নাইম বলেন, ‘নানা আঙ্গিকেই মেলা নিয়ে এবারে আমরা আশাবাদী। সম্পর্কিত না হলেও অস্বীকার করার উপায় নেই বইমেলায় বসন্তবরণ এবং ভালোবাসা দিবসের গুরুত্ব। এই সময়টির জন্য এখন সবারই অপেক্ষা। অনেক লেখক এবং প্রকাশক এই দুই দিনেই বই প্রকাশ করে থাকে। বিক্রিও হয় বেশ। অন্তত বিগত দিনে তারই প্রমাণ মিলছে। এ দু’দিনকে বরণ করতে মেলা আয়োজকরাও বিশেষ প্রস্তুত বলে মনে করি।’
এদিকে সিলেটের বইমেলায়। কর্মজীবী পাঠকের আনাগোনায় সরব হয় সন্ধ্যাবেলা। ছুটির দিন বাদে প্রতিদিন দুপুর তিনটায় খুলে যায় গ্রন্থমেলার দুয়ার। এরপর রাত নয়টা অবধি চলে অমর একুশে গ্রন্থমেলা। ছয় ঘণ্টার এই গ্রন্থরাজ্যে মেলার চিত্র থাকে তিন রকম। দুপুর বেলায় পাঠকের আনাগোনা থাকে একেবারেই স্বল্প। মূলত বিকেল থেকে বাড়তে থাকে বইপ্রেমীর সংখ্যা। বিকেল গড়ানো সন্ধ্যায় দৃশ্যটি হয় আরেক রকম। ঝলমলে আলোয় রঙিন রূপ পায় নান্দনিক বিন্যাসের গ্রন্থমেলা। আর সন্ধ্যা থেকে রাতের সময়টিতে ভিড় নামে কর্মজীবী পাঠকের। বইয়ের টানে অফিস ছুটির পর মেলায় আসেন নানা পেশার মানুষ। তাদের পদচারণায় মেলাজুড়ে বিরাজ করে সরবতা।
শীতের শেষ মাস মাঘের অন্তিমকালে মঙ্গলবার মেলায় ঘুরছিলেন মাসুদ আহমদ। তিনি জগন্নাথ পুর থেকে এসেছেন । মাসুদ আহমদ বিভিন্ন স্টল ঘুরে সংগ্রহ করছিলেন আপন মননের উপযোগী গ্রন্থ। হাতে ঝুলছিল বইয়ের ব্যাগ। সেগুলোর মধ্যে ছিল হাসান আজিজুল হকের প্রবন্ধগ্রন্থ ‘আমার রবীত্ব যাপন’। ও মহাদেব সাহার কাব্যগ্রন্থ ‘চোখ বুজে পাহাড় দেখেছি’।
শুভপ্রতিদিনের সঙ্গে কথা হয় একটি বেসরকারী সংস্থার কর্মর্কতা সুমন ইসলামের আলাপচারিতায় তিনি বলেন, একসময় মেলা চলত রাত ৯ পর্যন্ত। তাই বিকেল পাঁচটায় অফিস শেষ করে মেলা চলে আসি। এখন রাত নয়টা পর্যন্ত মেলা চলায় পর্যাপ্ত সময় পাওয়া যায়। তাই সুযোগ পেলেই আসা হয় বইমেলায়। এদিন সন্ধ্যা ছয়টায় দেখা মেলে আরেক শিক্ষক আফজাল হোসেনের সঙ্গে। কলেজ ছুটির পর তিনি বাসায় না গিয়ে বইমেলা সরাসরি চলে এসেছেন বইয়ের ভুবনে। তিনি জানান বইমেলায় আমাদেও প্রাণের মেলা ঢার মেলায় না যেতে পারলে সিলেট বইমেলায় আত্তার খোড়াক পাই।
আয়োজকরা জানান, মেলা উপলক্ষে বিকেল থেকে শহীদ মিনারের মঞ্চে শুরু হয় ভাষার মাসের উপর আলোচনা। চলে শিল্পীদের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এছাড়া, কবিতা আবৃত্তি তো আছেই। সেই সাথে আকর্ষণ বাড়াচ্ছে বিভিন্ন গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন। প্রথমআলো বন্ধুসভা আয়োজিত ১৫দিনব্যাপী মেলা প্রতিদিন বেলা তিনটা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত চলবে। বইমেলায় এবারও সিলটিভি প্রতিদিন সন্ধ্যা ৭টা থেকে নতুন বইয়ের খবর নিয়ে লাইভ দেয়। এছাড়াও প্রতিদিন মেলায় রয়েছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সাহিত্য আড্ডা, আলোচনা সভা, শিশুদের আবৃত্তি, চিত্রাঙ্কন, ফটোগ্রাফি ও সেল্ফি প্রতিযোগিতা ও নতুন বইয়ের মোড়ক উন্মোচন। মুজিববর্ষ উপলক্ষে এবছর সিলেট বইমেলা উৎসর্গ করা হয় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে। মেলা আয়োজনে সহযোগিতা করছে সিলেট সিটি কর্পোরেশন। প্রথমআলো বন্ধুসভা সেই বিষয়টিকে গুরুত্ব দিতে আয়োজিত মেলা সার্থক বলে মনে করছেন আগতরা। মেলায় বইপ্রেমী কবি, সাহিত্যিক ও লেখকদের আড্ডা বেশ জমে উঠেছে। মেলার যেখানে সেখানে দাঁড়িয়ে আড্ডায় মেতে উঠেন সকল বয়সী কবিরা। আর সেই আড্ডার আলোচনার প্রাণ ছিলো মেলায় আসা নতুন বইগুলো। সিলেটে মেলা হলেও দেশের বড় বড় লেখকের সব ধরনের বই ঠাঁই পেয়েছে মেলায়। বিশেষ করে সিলেটের অধিকাংশ তরুণ কবিদের বই ছিলো মেলার মূল আকর্ষণ। কবি সাহিত্যিক, সংস্কৃতিকর্মীদের মতো অভিভাবকরাও সন্তানদের নিয়ে এসেছেন মেলায়। সবার মতো শিশুরা কিনছে তাদের পছন্দের বই।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin