বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১, ০৫:৪৪ অপরাহ্ন

সিলেট বন অফিসে গাছের ‘বোবা কান্না’

সিলেট বন অফিসে গাছের ‘বোবা কান্না’


শেয়ার বোতাম এখানে

সাত্তার আজাদ: সিলেট নগরীর তোপখানায় বন বিভাগের কার্যালয়। বিভাগীয় বন কর্মকর্তার অফিস কক্ষ লাগোয়া একটি মধ্যবয়সী কাঁঠাল গাছ। গাছটির দিকে তাকালেই মনে হবে বাঁচার আকুতি আছে তার।

সেই আকুতি থেকে একটি মুচি ধরেছে অল্পদিন হল। কিন্তু সেই কচি মুচি সমেত গাছটি এখন কোমায় আছে। তার বেঁচে থাকার শেষ ভরসা অবশিষ্ট একটি ডাল ছিল, সেটিও কেটে ফেলা হয়ছে গত পরশু। তাই তার বেঁচে থাকার কোনো অবলম্বনই বাকি রইল না। সিলেট বন বিভাগের অফিসে গাছের এমন বোবা কান্না অনেকেই মেনে নিতে পারছেন না।

নাম পরিচয় গোপন রেখে সিলেট বন বিভাগ কার্যালয়ের কয়েকজন জানালেন, দুই ফুট গোলাকার মধ্যবয়সী কাঠাল গাছটি প্রচুর ফলন দিত। বন বিভাগের লোকজন বছরদুই আগে থেকে ক্রমান্বয়ে গাছটির মগ ডাল কেটে ফেলেন।

এরপর গাছের চার ফুট উঁচু থেকে একটি ও আট ফুট উঁচু থেকে দুটি ডাল বেরুয় এক বছর আগে। বেঁচে থাকার অবলম্বন উপরের ডাল দুই মাস মাস আগে কেটে ফেলা হয়। গত পরশু নিচের ডালটিও কেটে ফেলা হয়েছে। ফলে গাছটি বেঁচে থাকার শেষ ভরসাও হারিয়েছে। গাছটি এখন লাইফ সার্পোটে আছে।

এ নিয়ে অনেকের প্রশ্ন, গাছের জীবন রক্ষার বা রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে আছে বন বিভাগ। কিন্তু বন বিভাগের কার্যালয়েই যদি এমন ফলদ গাছকে এভাবে টর্টার করা হয়, মৃত্যু মুখে ফেলে দেয়া হয়। তবে এই বোবা গাছগুলো বেঁচে থাকার আশ্রয় পাবে কার কাছে।

এ বিষয়ে সিলেট বন বিভাগ কার্যালয়ের রেঞ্জার হাসমত আলী বলেন, ‘গাছটি মরা আগেই মরে গেছে। আমরা মারিনি। আল্লার হুকুমেই মরেছে।’ গাছটি এখনো মরেনি, জীবিত। জীবিত গাছের সব ডাল কেটে ফেলা হল কেন প্রশ্নের কোনো সদুত্তর তিনি দিতে পারেননি।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin