রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:১৩ অপরাহ্ন


সিলেট-১ নৌকার পালে পূবালি হাওয়া

সিলেট-১ নৌকার পালে পূবালি হাওয়া


শেয়ার বোতাম এখানে

নবীন সোহেল: একদিকে শীত, অন্যদিকে জাতীয় নির্বাচন। নির্বাচনকে ঘিরে গ্রামের চায়ের দোকানগুলোতে বাড়তে শুরু করেছে ভিড়। দোকানিরাও বাড়াচ্ছে কেটলি-কাপের সংখ্যা। এখন থেকেই দোকানে দোকানে শুরু হয়েছে নির্বাচনী আড্ডা ও তর্ক-বিতর্ক। তাই খাদিম নগরের সাইদুল মিয়ার চায়ের দোকানে এখন সারাক্ষণ চলে নির্বাচনের গল্প। ভোটের গল্প। ভোট নিয়ে চলে সবার চুলচেরা বিশ্লেষণ। হিসাব কষাকষি। কেউ এগিয়ে রাখে মোমেনের নৌকাকে। আবার কেউ এগিয়ে রাখছেন মুক্তাদিরের ধানের শীষকে। পড়ন্ত বিকেলে গায়ে চাঁদর জড়িয়ে টঙে বসে চা খাচ্ছেন আশির্দ্ধো রহমান মিয়া। সবাই দাদু বলেই সম্ভোধন করছেন তাকে। তার ডান হাতে চায়ের কাপ। কাপ থেকে গরম ধোঁয়া উড়ছে। কুলি পাকিয়ে হাওয়ায় মিলিয়ে যাচ্ছে ধোঁয়া। হাতে ধরে রাখা চায়ের কাপের দিকে কোনো ভ্রƒক্ষেপ নেই রহমান দাদুর। তবুও নির্বাচনের স্মৃতিচারণে ব্যস্ত তিনি। দোকানি সাইদুল বলে উঠলেন, আপনি এতো কথা বলছেন কেন? হাতের চা তো ঠান্ডা হয়ে যাচ্ছে। খেয়ে নিন আগে। সাথে সাথে থেমে যান রহমান দাদু। টঙে নড়েচড়ে বসেন তিনি। তারপর চায়ের কাপে চুমুক দেন। চায়ের কাপে চুমুক দিয়ে লক্ষ্য করে শুনছেন পাশে দাড়ানো যুবক জুয়েল মিয়ার কথা। ৩০ ডিসেম্বর ভোট। কে জিতবে বলে মনে হয়? আওয়ামী লীগ না বিএনপি?

 

এই টঙে বসে ছিলেন মখলিছ মিয়া। এলাকার বুদ্ধিজীবীদের একজন। এতক্ষণে মুখ খুললেন তিনি। রহমান দাদুর মুখ থেকে কথা কেড়ে নিয়ে বললেন, ভোটের কী জানবে দাদু? ওকে জিজ্ঞেস করে কী হবে? সকালে ঘুম থেকে উঠেই তো ঘরে আর এই দোকানে। ও আর ভোটের কী বুঝবে? তুমি কী জানতে চাও, আমাকে বলো। আমি প্রতিদিন শহরে যাই। ঘুরিফিরি। শহরের ভোটের আবহাওয়া বুঝি। ততক্ষণে দোকানে অনেকে চলে এসেছেন। দোকানের সামনে, রাস্তায় ছোট একটা জটলা সৃষ্টি হয়েছে। চারপাশ গমগম করছে। চায়ের কাপে রীতিমতো ঝড় উঠেছে। ভোটের ঝড়। ভোটে কে জিতবে, কে হারবে, এ নিয়ে চলছে পক্ষে-বিপক্ষে নানা মত, নানা জরিপ। সব জরিপেই আওয়ামী লীগের সমর্থকেরা এগিয়ে রাখছে মোমেনকে। আর বিএনপি সমর্থকেরা এগিয়ে রাখছেন মুক্তাদিরকে। শীতের মাঝে চায়ের কাপে চুমুক দিতে দিতে তাদের এই ভোটের জয়-পরাজয়ের যুক্তি, পাল্টা যুক্তি শোনতে মন্দ লাগছে না। আমিও চায়ের কাপে চুমুক দিয়ে ওদের ভোটযুদ্ধ শুনতে লাগলাম। তাদের শেষ হিসেব নিকেশে অবশেষে মনে হলো মোমেনের নৌকার পালেই লেগেছে হাওয়া।

 

সিলেট সিটি কর্পোরেশন ও সদর উপজেলা নিয়ে গঠিত মর্যাদাপূর্ণ সিলেট-১ আসনে আসন্ন একাদশ সংসদ নির্বাচনে ৫ লাখ ৪২ হাজার ৯৩৬ জন ভোটার রয়েছেন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ২লাখ ৮৬হাজার ২৬৭। নারী ভোটার ২লাখ ৫৭হাজার ২৬৩। সিলেটের ১৯টি আসনের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভোটার সিলেট-১ আসনে। ১ম সংসদ নির্বাচন থেকে এ পর্যন্ত ৮টি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যে দলের সাংসদ নির্বাচিত হয়েছেন, সে দলই সরকার গঠন করেছে। সকল নির্বাচনে দলের প্রধানসহ অধিকাংশ প্রার্থী হযরত শাহজালাল (র.) ও হযরত শাহপরান (র.) এর মাজার জিয়ারত করে তাদের নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করে থাকেন। তাই সিলেট-১ আসন আলাদা অনন্য মর্যাদার এক আসনের স্থান দখল করে আছে। যার কারণে কেন্দ্রীয় থেকে এই আসনের প্রতি জোর দিচ্ছেন দুই দলের শীর্ষ নেতারা।

 

এই আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য হচ্ছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত। আসন্ন সংসদ নির্বাচনে তিনি প্রার্থী হননি। তাঁর পরিবর্তে এখানে আওয়ামী লীগ তথা মহাজোটের প্রার্থী হয়েছেন তাঁরই সহোদর ড. এ কে আব্দুল মোমেন। তিনি জাতিসংঘের বাংলাদেশের সাবেক স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত। অপরদিকে, বিএনপি তথা ঐক্যফ্রন্টের মনোনীত প্রার্থী হচ্ছেন বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির। তিনি একজন শিল্পপতি। তার বাবা মরহুম খন্দকার আব্দুল মালিক বিএনপি থেকে ১৯৭৯ সালে ২য় জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এই আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। নির্বাচনে দুজনই নতুন মুখ হলেও, দুজনই নির্বাচনী লড়াই শিখেছেন তাদের পরিবার থেকেই। তাই লড়াইটাও হবে জমজমাট। প্রায় এক দশক পর একটি প্রতিদ্বন্ধিতামূলক নির্বাচনের অপেক্ষায় নগরবাসী। বিগত দশটি সংসদ নির্বাচনে এই আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ৬বার ও বিএনপি’র প্রার্থী ৪ বার নির্বাচিত হয়েছেন। সে হিসেবে এই আসনে বিএনপি থেকে এগিয়ে রয়েছে বর্তমান ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ।
বর্তমান আওয়ামী লীগের শাসনামলে গত ১০ বছর এই নির্বাচনী এলাকায় অনেক উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়িত হয়েছে। নগরীর সৌর্ন্দয্যবর্ধনেও ব্যাপক পরিবর্তন এসেছে। সিটি কর্পোরেশনের মাধ্যমেও যে কয়টি প্রকল্প বাস্তবায়ন হয়েছে তারও মূল অবদান অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিতের। তাই মুহিতের পরবর্তি অর্থমন্ত্রী হিসেবে মোমেনকেই দেখছেন সিলেটবাসী।

 

সিলেট নগরীতে এখনো প্রচার-প্রচারণায় নৌকা এগিয়ে। প্রতিদিনই আওয়ামী লীগের সর্বস্তরের নেতাকর্মীকে মাঠে সক্রিয় থাকতে দেখা গেছে। দাপটের সাথে চলেছে তাদের প্রচারণা। সে তুলনায় প্রচারণায় ধানের শীষ পিছিয়ে রয়েছে। গ্রেফতার আতংকের কারণেই বিএনপির নেতাকর্মীদের মাঠে দেখা যাচ্ছে না। তবে ভোটার কেন্দ্রীক প্রচারে অনেকটা কৌশলী ছিলেন মুক্তাদির।

 

সরেজমিনে ভোটারদের সাথে আলাপকালে জানা যায়, ভোটাররা নির্বিঘেœ ভোট দেয়ার ব্যাপারে আশাবাদী। নৌকার পক্ষে যেমনি অনেক ভোটার মুখ খুলছেন, তেমনি ধানের শীষের সমর্থন করেন এমন ভোটারদের বেশির ভাগই ভয়ে মুখ খুলতে রাজি নন। নগরীর কাজির বাজার কলনী এলাকার সবজি ব্যবসায়ী আফিজ মিয়ার কাছে নির্বাচনের অবস্থা জানতে চাইলে দ্বিধাহীনভাবে তার মনের জরিপের কথা তুলে ধরে বললেন, দুইদিন আগেই মোমেন সাহেবের নৌকা অনেকটা এগিয়ে ছিলো। কিন্তু পুলিশ যেভাবে মানুষ ধরছে এতে করে মানুষ ক্ষিপ্ত হয়ে সরকারের বিরুদ্ধে ভোট দিবে।
দেশের শান্তি চান, দেশে একটা শান্তিপূর্ণ নির্বাচন চান নির্মাণ শ্রমিক শেখঘাট কলাপাড়া এলাকার সুজন আহমদ। তার দাবী মারামারি, হানাহানি না হয় এবং আমাদের গরিবের পেটে লাথি না পড়ে। কারণ কোন সংঘাত ঘটলেই গাড়ি ভাংচুর হয়। আতংক সৃষ্টি হয়। তিনি নির্বাচনে পছন্দের প্রার্থীকেই যাতে নির্ভিঘেœ গিয়ে ভোট দিতে পারেন সেই পরিবেশ চান। এই সরকার অনেক উন্নয়ন করেছে, দশ টাকা দরে চাল পাচ্ছি, মাসে মাসে মেয়ের উপবৃত্তির টাকা পাচ্ছি। এই সরকারই ভালো। ভোট দিলে তারেই দিবো বলে তাড়াতাড়ি করে স্থান ত্যাগ করলেন চৌকিদিঘীর বাসিন্দা ব্যবসায়ী সাজিদ খান। নগরীর বন্দর বাজারের ডিম বিক্রেতা রাসেল মিয়া ভোট দিবেন এইবার প্রথম। সে ভোট দিতে যাবে বিকেলের দিকে। তার যুক্তি সেন্টারে গিয়ে যার অবস্থান ভালো থাকবে তাকেই ভোট দিবে। জীবনের প্রথম ভোটটি নষ্ঠ করতে চায় না সে। সুবহানিঘাট পয়েন্টে কথা হয় ট্রাক ড্রাইভার আলতাফ হুসেনের সাথে। তিনি বলেন, আগের চেয়ে এখন দেশের অনেকটা উন্নতি হয়েছে। তবে এই সরকারের আমলে রাস্তায় বেশি পুলিশ হয়রানির শিকার হয়েছেন বলে জানান তিনি। সিলেট সদর উপজেলার ঝৈনকারকান্দি গ্রামের কৃষক জালাল উদ্দিন বলেন, চাই একটা শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হউক নিরপেক্ষ নির্বাচন হউক এটাইতো আমাদের বড় ভাবনা। ১০ বছর একটা সরকার ক্ষমতায় ছিলো এবার পরিবর্তন দরকার দুর থেকে বলে উঠলেন মধ্যবয়সী নাম না জানা এক ব্যক্তি। অনেক সুযোগ সুবিধা পেয়েছেন এই সরকারের আমলে জানালেন তারাপুর চা বাগানের চা শ্রমিক দুলাল ভুমিজ।
বছরের শুরুতেই নগরবাসী মেতে উঠেছিল মেয়র নির্বাচনের ভোট উৎসবে। একই বছরে এক দশক পর রোববার একটি প্রতিদ্বন্ধিতামূলক সংসদ নির্বাচনী উৎসবের অপেক্ষায় আছেন নগরবাসী। সবশেষে কে হাসবেন শেষ হাসিটা সেটা দেখার কেবলই অপেক্ষা মাত্র।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin