মঙ্গলবার, ১৬ Jul ২০২৪, ০৬:১৮ অপরাহ্ন


‘সুনামগঞ্জে হাওরে দুর্নীতির খবর প্রধানমন্ত্রীর কাছে যাচ্ছে, এবার রক্ষা নেই’

‘সুনামগঞ্জে হাওরে দুর্নীতির খবর প্রধানমন্ত্রীর কাছে যাচ্ছে, এবার রক্ষা নেই’


শেয়ার বোতাম এখানে

শুভ প্রতিদিন ডেস্ক:

পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব কবির বিন আনোয়ার বলেছেন,‘যেভাবে হাওরের ফসল গেছে বলে হায় হায় রব উঠেছে, বিষয়টা সেভাবে নয়। আশার কথা হলো, এখনো সুনামগঞ্জে হাওরের ৯৮ ভাগ ফসল আছে। এই ফসল রক্ষার জন্য সবাই মাঠে আছেন। তবে পরিস্থিতি ভালো না। শঙ্কা আছে।’

বৃহস্পতিবার (১৪ এপ্রিল) দুপুরে সুনামগঞ্জের হাওর পরিস্থিতি নিয়ে জেলা প্রশাসন আয়োজিত জরুরি মতবিনিময় সভায় কবির বিন আনোয়ার এসব কথা বলেন।

জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলনকক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন। এতে সরকারি কর্মকর্তা, মুক্তিযোদ্ধা, রাজনৈতিক দলের নেতা, জনপ্রতিনিধিসহ বিভিন্ন শ্রেণি ও পেশার লোকজন অংশ নেন।

হাওরের বাঁধ নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগের তদন্ত হচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘মন্ত্রণালয়ের কমিটি কাজ করছে। গোয়েন্দা সংস্থাও খোঁজ নিচ্ছে। সব খবর প্রধানমন্ত্রীর কাছে যাচ্ছে। এবার রক্ষা নেই। বড় বড় কিছু নামও শোনা যাচ্ছে। যারাই যুক্ত, তাদের ধরা হবে। এবার সব হবে ওপেন, একটা হেস্তনেস্ত হবে, কাউকেই ছাড়া হবে না।’

প্রধানমন্ত্রী কৃষকদের প্রতি অত্যন্ত সদয় উল্লেখ করে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব বলেন, বাঁধের কাজে কিছু অনিয়ম, গাফিলতি আছে। এটা সবাই করে না, কাজ হয়েছে বলেই এখনো ৯৮ ভাগ ফসল টিকে আছে। তাই ঢালাওভাবে সবাইকে দোষারোপ করা ঠিক হবে না। এটা করলে যারা ভালো কাজ করে, তারা কষ্ট পাবে।

সভায় বিভিন্ন বক্তা বাঁধের কাজের অনিয়ম নিয়ে কথা বলেন। বাঁধের কাজে এখন একটা সিন্ডিকেট গড়ে উঠেছে বলে জানান তাঁরা। এর সঙ্গে প্রশাসন ও পাউবোর কর্মকর্তা যুক্ত। এ ছাড়া জেলার কোনো কোনো সাংসদও কাজে নানাভাবে প্রভাব বিস্তার করেন বলে অভিযোগ করা হয় সভায়।

বক্তারা আরও বলেন, পিআইসি গঠনে অনিয়ম হয়, কাজ শুরু হয় দেরিতে। নেওয়া হয় অপ্রয়োজনীয় প্রকল্প। ধরা হয় অতিরিক্ত ব্যয়। এভাবে বাঁধ নির্মাণের নামে সরকারি টাকা লুটপাট হচ্ছে।

সভায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) প্রধান প্রকৌশলী (উত্তর-পূর্ব) এস এম শহিদুল ইসলাম, সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। বক্তব্য দেন জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক বিমল চন্দ্র সোম, বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু সুফিয়ান, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নান্টু রায় ও হায়দার চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক সিরাজুর রহমান ও জুনেদ আহমদ, জেলা জজ আদালতের জিপি আখতারুজ্জামান সেলিম, জামালগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ইকবাল আল আজাদ, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোবারক হোসেন প্রমুখ।

উল্লেখ্য, সুনামগঞ্জে গত ১৫ দিনে পাহাড়ি ঢলে অস্বাভাবিকভাবে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে ঝুঁকিতে পড়েছে জেলার সব হাওরের বোরো ফসল। এ পর্যন্ত বাঁধ ভেঙে ও ছোট-বড় আরও ১০টি হাওরের ফসলহানি ঘটেছে। তবে জেলার বড় বড় হাওরগুলোর ফসলের এখনো ক্ষতি হয়নি।

জেলা কৃষি বিভাগের হিসাবমতে, এবার সুনামগঞ্জে ২ লাখ ২২ হাজার ৮০৫ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ হয়েছে। ধানের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১৩ লাখ ৫০ হাজার ২২০ মেট্রিক টন। এ পর্যন্ত প্রায় ১৪ হাজার হেক্টর জমির ধান কাটা হয়েছে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin