শনিবার, ১৩ Jul ২০২৪, ০৯:৫৭ অপরাহ্ন


সুনামগঞ্জ হাওরে গিয়ে ধান কাটলেই কৃষকরা পাবেন খাদ্যসামগ্রী: জেলা প্রশাসক আব্দুল আহাদ

সুনামগঞ্জ হাওরে গিয়ে ধান কাটলেই কৃষকরা পাবেন খাদ্যসামগ্রী: জেলা প্রশাসক আব্দুল আহাদ


শেয়ার বোতাম এখানে

স্টাফ রিপোর্ট:

সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ বলেন, সুনামগঞ্জে হাওরে গিয়ে ধান কাটলেই কৃষকরা পাবেন খাদ্যসামগ্রী। নিরাপদে ধান উত্তোলনে উদ্বুদ্ধ করার জন্য “কাটলে হাওরের ধান, মিলবে ত্রাণ ” এই স্লোগানে কৃষকদের মাঝে বরাদ্দকৃত ৯০ টন খাদ্য সহায়তা ও ১২ হাজারের অধিক হাত ধোয়ার সাবান, গামছা, মাস্ক, খাদ্য দ্রব্য এবং ধান কাটার কাঁচি বিতরণ করা হচ্ছে। যাতে করে সুনামগঞ্জের কোন ধান বন্যার কবলে পড়ে নষ্ট না হয়।

 

নভেল করোনা ভাইরাসের কারণে বিশ্বব্যাপী এক সংকট দেখা দিয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডাব্লিউ এইচ ও) এর ভবিষ্যৎ বানী অনুযায়ী বিশ্বের ৩ কোটি মানুষ এই সংকটে খাদ্যাভাবে মৃত্যুবরণ করতে পারেন। এছাড়াও আবহাওয়া অধিদপ্তর আগাম বন্যার আভাস দিয়েছে। এসব প্রেক্ষাপটে সুনামগঞ্জে এমন ব্যাতিক্রমি  উদ্যোগ গ্রহণ করেছে জেলা প্রশাসন।

 

এছাড়া অন্যান্য জেলা থেকে আগত কৃষি শ্রমিকগণের যাতায়াত ও স্বাস্থ্য পরীক্ষার বিষয়ে সারাদেশের প্রশাসন, পুলিশ ও স্বাস্থ্য বিভাগ একযোগে কাজ করছে। হাওরে ধান কাটার জন্য আগত বিভিন্ন জেলার কৃষি শ্রমিকদের থাকার জন্য হাওরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো খুলে দেয়া হয়েছে।

 

এছাড়া ধান কাটার কাজ তদারকি করছেন সকল সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তারাও। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অত্যন্ত বিচক্ষণতার সাথে অনেক পূর্বেই এ বিষয়ে অনুধাবন করতে পেরে দেশবাসীর উদ্যেশে প্রদত্ত ৩১ দফা বক্তব্যের মধ্যে দেশের প্রতি ইঞ্চি জমিতে খাদ্য শস্য, সবজি এবং ফলমূল আবাদের বিষয়ে সকলকে নির্দেশনা প্রদান করেছেন তিনি।

 

দেশের খাদ্য চাহিদা মেটাতে সুনামগঞ্জ জেলার উৎপাদিত ধানের গুরুত্ব সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী সম্যক অবগত আছেন এবং তার সুচিন্তিত নির্দেশনায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের তত্ত্বাবধানে যেকোনো রকম সম্ভাব্য দূর্যোগের পূর্বেই নিরাপদে ধান  ঘরে তোলার জন্য সরকার তৎপর রয়েছে।

 

চলমান ২০১৯-২০ অর্থবছরে সুনামগঞ্জের হাওর ও হাওর বহির্ভূত প্রায় ২ লাখ ১৯ হাজার ৩০০ হেক্টর জমিতে বোরো ফসল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ১২ লক্ষ মেট্রিক টন যা সুনামগঞ্জের চাহিদা মিটিয়েও সারাদেশের খাদ্যের একটি উল্লেখযোগ্য অংশের চাহিদা পূরণ করতে সক্ষম হবে।

 

২৬ এপ্রিল হতে ৩০ এপ্রিলের মধ্যে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের আগাম বন্যা পূর্বাভাসের ভিত্তিতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশনার অতি জরুরি ভিত্তিতে হাওরে পেকে যাওয়া সকল ধান গত ২৫ এপ্রিলের পূর্বেই ঘরে তোলার জন্য সর্বশক্তি নিয়োগ করে মাঠে ঝাপিয়ে পড়েছে জেলা প্রশাসন।

সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার নিজেই সুনামগঞ্জের প্রশাসনের কর্মকর্তাগণকে নিয়ে মাঠ পর্যায়ে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ, দিরাই, জামালগঞ্জ, তাহিরপুর ও বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার হাওর সমূহের ধান কাটার কাজ তত্তাবধান করেন এবং সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে ধান কাটার কার্যক্রম সম্পর্কে সকলের সাথে মতবিনিময় করেন। তিনি ধান কাটা এবং প্রক্রিয়াজাত করণের সাথে সংশ্লিষ্ট জেলার সকলকে নিয়ে একটি নির্দেশনামূলক সভা করেন এবং বিশ্বের বর্তমান প্রেক্ষাপটে দেশের খাদ্য চাহিদা যোগানে সুনামগঞ্জের ধানের গুরুত্ব বিষয়ে সকল উপলব্ধি করিয়েছেন।

সুনামগঞ্জের প্রতিটি হাওরের ফসল নিরাপদে কৃষকের ঘরে তুলে দেয়াকে বর্তমান প্রেক্ষাপটে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার বিবেচনা করে, যার যা কিছু আছে তাই নিয়ে মাঠে যাওয়ার অনুরোধ জানান তিনি।

হাওরের ধান কৃষকদের গোলায় তোলতে জেলার আনসার, কর্মক্ষম ছাত্র-শিক্ষক, পরিবহন শ্রমিক, মৎস্যজীবী, বারকি শ্রমিক, পাথর-বালু মহাল শ্রমিক, রেস্টুরেন্ট-হোটেল শ্রমিক, কলকারখানার কর্মহীন শ্রমজীবীসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে জেলায় প্রত্যাগত বিশাল জনসমষ্টি স্বতঃস্ফূর্তভাবে ধান কাটার কাজে আত্মনিয়োগ করেন। ফলে ৬ দিনের মাঝে ধান কাটা, মাড়াই ও প্রক্রিয়াজাতকরণের শ্রমিকে সংখ্যা ৩০ হাজার ৫’শ ৯২ হতে বৃদ্ধি পেয়ে ৯৪ হাজার ৪’শ ৫৬ এ উন্নীত হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কর্তৃক গত ৭ এপ্রিল থেকে সুনামগঞ্জের ধান দ্রুত কাটার সমস্যা সমাধানে ৪০ টি কম্বাইন্ড হার্ভেস্টারসহ মোট ১১০ টি কম্বাইন্ড হার্ভেস্টার ও ১১৮ টি রিপার মেশিন মাঠে কাজ ব্যবহার করা হচ্ছে।

পরিকল্পনামন্ত্রী ও সংসদ সদস্যগণ এবং সরকারের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাগণের নির্দেশনা অনুযায়ী ধান কাটার কাজ তত্তাবধান করা হচ্ছে। একই সাথে জেলার হাওরে প্রায় ১৩৩ কোটি টাকা ব্যয়ে ৭৪৫ টি পিআইসি  এর মাধ্যমে  নির্মিত ৬৩৩ কি.মি ফসল রক্ষা বাঁধ এবং ১৩৫ টি ক্লোজার সার্বক্ষনিক নজরদারি এবং তত্তাবধানের মধ্যে রয়েছে। জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাগণ সরাসরি মাঠ পর্যায়ে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ও পানি উন্নয়ন বোর্ডসহ সংশ্লিষ্ট সকলের সাথে সমন্বয়ের মাধ্যমে কৃষকদের সাথে যোগাযোগ রেখে তাদের সকল অসুবিধা সমাধান করছেন।

সকল সমন্বিত উদ্যোগের ফলে হাওড়ের ফসল সকল ধরণের প্রতিবন্ধকতা জয় করে কৃষকের ঘরে সোনালী ফসল তুলে দেয়ার পাশাপাশি দেশের খাদ্যভান্ডারকে সমৃদ্ধ করতে সক্ষম হবে।

একইসাথে কৃষকের ধান ন্যায্য মূল্যে বিক্রির লক্ষে এ জেলার মিল মালিক ও ধান ব্যবসায়ীদের নিয়ে একটি কার্যক্রম গ্রহণ করা হচ্ছে এবং খাদ্য সংগ্রহ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে এ জেলার প্রাপ্ত ২৫ হাজার ৮’শ ৬৬ মেঃ টন ধান সরাসরি কৃষকের কাছে থেকে নির্ধারিত মূল্যে কেনার লক্ষ্যে সব পর্যায়ে স্বচ্ছ তালিকা তৈরির কার্যক্রম চলমান। যাতে কোন ফড়িয়া বা মধ্যসত্বভোগী মহল কৃষককে ক্ষতিগ্রস্থ করতে না পারে।

প্রকৃতি অনুকুল থাকলে সকলের অক্লান্ত ও সমন্বিত উদ্যোগে এই বছর সময়মত নিরাপদে ধান নিরাপদে কৃষকের স্বপ্নের সোনালী ফসল ঘরে তুলে দেয়া সম্ভব হবে বলে সুনামগঞ্জের আপামর জনগণ আশাবাদী।

 


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin