বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২, ০১:৩৬ অপরাহ্ন


স্বরণ : যার আলোয় আলোকিত ছিলো গোটা সিলেট

স্বরণ : যার আলোয় আলোকিত ছিলো গোটা সিলেট


শেয়ার বোতাম এখানে

               এম এ ওয়াদুদ এমরুল
সিলেট জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা “ইফতেখান হোসেন শামিম” ভাই ২০১২ সালের ১১মে ভোরে গ্রীনলাইন পরিবহনে করে ঢাকা থেকে সিলেটে ফেরার পথে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনায় কেড়ে নেয় তার প্রাণ। অবসান হয় বর্ণাঢ্য এক রাজনৈতিক ব্যাক্তিত্বের। খসে পড়ে এক উজ্জ্বল নক্ষত্র যার আলোয় আলোকিত ছিল গোটা সিলেট।

দূর্ঘটনায় গুরুত্বর আহত হয়েছিলেন সঙ্গে থাকা স্ত্রী জেলা আওয়ামীলীগ নেত্রী গোলাপগঞ্জের মেয়ে নাজনিন হোসেন ও একমাত্র মেয়ে। হাজার হাজার নেতাকর্মীর চোখের জ্বলে বিদায় জানিয়েছিল আমাদের প্রিয় নেতা, অভিভাবক, বীর মুক্তিযোদ্ধা ইফতেখার হোসেন শামিম ভাইকে।

৭১ এ বন্দুক জমা দিলেও যিনি আমৃত্যু সংগ্রাম চালিয়ে গেছেন একজন যোদ্ধার মতো। সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার বাস্তবায়ন থেকে শুরু করে সিলেটের অসংখ্য সংগ্রামে যিনি ছিলেন অগ্রসৈনিক। ইফতেখার হোসেন শামিমের অকাল মৃত্যুতে শুধু সিলেট আওয়ামীলীগ নয়, সিলেটের পুরো রাজনৈতিক অঙ্গন হারিয়েছেন এক অভিভাবক।

সে শূন্যস্থানটি কখনো পূরণ হবার নয়। বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী ছিলেন ইফতেখার হোসেন শামিম। রাজনৈতিক প্রজ্ঞা ও দূরদর্শিতার জন্য সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী মরহম আলহাজ্ব মরহুম আব্দুস সামাদ আজাদের সবচেয়ে কাছের মানুষ ছিলেন। সিলেটের আরেক বর্ষীয়ান রাজনৈতিক প্রয়াত ফরিদ গাজী খুবই স্নেহ করতেন তাকে।

সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার দেওকলস ইউনিয়নের ডুলপাড়া গ্রামের অ্যাডভোকেট এরশাদ হোসেন ও ফরিদা খাতুন নেছার দুই ছেলে ও দুই মেয়ের মধ্যে ইফতেখার হোসেন শামিম ছিলেন সবার বড়। ১৯৪৯ইং সালে জন্ম নেওয়া শামিম ছোট বেলা থেকেই সিলেট শহরে বেড়ে ওঠেন।

সিলেট সরকারী পাইলট উচ্চবিদ্যালয়ে মাধ্যমিক এবং সিলেট এস.সি কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক ডিগ্রী পাশ করেন। লেখা-পড়ার পাশাপাশি ষাটদশকে ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত হন। ৬৬-এর ৬ দফা ও ৬৯এর গণআন্দোলনে সক্রিয় ভূমিকা রাখেন। তিনি ১৯৭১ সালে ২নং সেক্টর কামান্ডার হিসাবে মুক্তিযোদ্ধে অংশগ্রহণ করেন।

ছাত্রজীবন শেষে ১৯৭৫ সালে সিলেট জেলা যুবলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালনের পর সিলেট জেলা আওয়ামীলীগের যগ্ম সাধারন-সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। ১০-১২ বছর এ দায়িত্ব পালনের পর ২০০৩ সালে কাউন্সিলারদের ভোটে সিলেট জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০১১সালে জেলা আওয়ামীলীগের কমিটিতে সহ-সভাপতির দায়িত্ব দেওয়া হয়।রাজনীতির পাশাপাশি ইফতেখার হোসেন শামিম বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া সংঘটনের সাথে জড়িত ছিলেন।

সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিটার বাস্তবায়ন পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন। ১৯৫৬ সালে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতির পাশাপাশি ঐ সময়ে তিনি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালকের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি সিলেট ডায়াবেটিকস সমিতির সেক্রেটারী ও মৃত্যুর আগ পর্যন্ত সিলেট আবাহনী ক্রীড়া চক্রের প্রেসিডেন্টের দায়িত্বে ছিলেন। এখনো বাসার দেয়াল জুড়ে সরাসরি টানানো ছবি, পারিবারিক ছবি, রাজনৈতিক সহ-কর্মীদের সঙ্গে তোলা হাস্যজ্বল ছবি।

এই ছবির এক পাশে রয়েছে বড় একটি সাদা- কালো ছবি। এই ছবি মনে করিয়ে দেয় ৭১ এর মুক্তিযোদ্ধের কথা। এ ছবি দেখে এক সময় গর্বিত হতেন তিনি। ছবির সঙ্গে তিনি নিজেও আজ স্মৃতি। বিনম্র শ্রদ্ধায় স্বরণ করি জাতির এই শ্রেষ্ঠ সন্তানের প্রতি। তিনি আজীবন বেঁচে থাকবেন সিলেটের মানুষের হৃদয়ে।
লেখক: এম এ ওয়াদুদ এমরুল, সাবেক সাধারন সম্পাদক, গোলাপগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগ, সিলেট।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin