বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০২:২৬ পূর্বাহ্ন



স্বাস্থ্যবিধি মেনে খেলাধুলা-প্রশিক্ষণ কার্যক্রম চালুর অনুমতি

স্বাস্থ্যবিধি মেনে খেলাধুলা-প্রশিক্ষণ কার্যক্রম চালুর অনুমতি


শুভ প্রতিদিন ডেস্ক:

স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাসহ ১০ শর্তে সীমিত আকারে খেলাধুলা আয়োজন ও প্রশিক্ষণ কার্যক্রম চালুর অনুমতি দিয়েছে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়। খেলাধুলা ও প্রশিক্ষণ কার্যক্রম চালুকরণ প্রসঙ্গে সোমবার (১০ আগস্ট) সচিবালয়ে এক জরুরি সভা শেষে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল এ সিদ্ধান্তের কথা জানান।
গত ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হওয়ার পর সাধারণ ছুটির সময় থেকে খেলাধুলা ও প্রশিক্ষণ কার্যক্রম বন্ধ রেখেছিল সরকার।
করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় সম্প্রতি খেলাধুলা ও প্রশিক্ষণ কার্যক্রম চালুকরণের বিষয়ে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় থেকে মতামত চেয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছিল।
সভা শেষে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিশ্বের অনেক দেশ করোনা সংক্রমণ কমে যাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে খেলাধুলা ও প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শুরু করেছে। আমাদের দেশেও করোনা সংক্রমণের হার নিম্নমুখী।
Image
এ পরিপ্রেক্ষিতে আমরা খেলাধুলা ও প্রশিক্ষণ কার্যক্রম চালুকরণের বিষয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মতামত চেয়ে চিঠি পাঠাই। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ১০টি শর্তে সীমিত আকারে খেলাধুলা আয়োজন ও প্রশিক্ষণ কার্যক্রম চালুর বিষয়ে মতামত দিয়েছে।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর নির্ধারিত শর্তগুলো প্রতিপালন পূর্বক দেশের সব পর্যায়ে খেলাধুলা ও প্রশিক্ষণ কার্যক্রম সীমিত আকারে চালুর বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ১০ শর্ত
১. খেলাধুলা শুরুর আগে খেলার মাঠ ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র চালুর পূর্বে মহামারি প্রতিরোধক সরঞ্জাম যেমন মাস্ক, গ্লাভস, জীবাণুনাশক এবং নন-কন্ট্যাক্ট ইনফ্রারেড থার্মোমিটার সংরক্ষণ করে সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ কাজের পরিকল্পনা প্রণয়ন করতে হবে। বিষয়টি তদারকি ও বাস্তবায়নের দায়িত্বের জন্য একজনকে নির্দিষ্ট করা এবং সংশ্লিষ্ট কর্মীদের স্বাস্থ্যবিধি প্রশিক্ষণ দিতে হবে।
২. সীমিত আকারে প্রশিক্ষণ কার্যক্রম ও খেলাধুলার আয়োজন করা।
৩. খেলোয়াড়, প্রশিক্ষক, ম্যানেজমেন্ট কমিটি এবং খেলাধুলা সংশ্লিষ্ট সবার নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে দেখতে হবে। ক্যাম্প শুরুর পূর্বে প্রয়োজনবোধে সবার কোভিড-১৯ পরীক্ষা করা যেতে পারে।
৪. খেলোয়াড়দের প্রশিক্ষণকালীন ক্যাম্পে অবস্থানের সময় স্বাস্থ্যবিধি মেনে থাকার ব্যবস্থা ও প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। খাওয়া-দাওয়ার ব্যাপারে পুষ্টিকর ও স্বাস্থ্যসম্মত খাবারের ব্যবস্থা করতে হবে। শারীরিক দূরত্ব বজার রেখে খাবার গ্রহণ ও খাবারের থালা-বাসন পরিষ্কার ও জীনাণুমুক্ত করার ব্যবস্থা করতে হবে। সম্ভব হলে ডিসপোজেবল প্লেট ব্যবহার করাই ভালো। ধূমপান নিরুৎসাহিত করতে হবে। খেলোয়াড়দের ঘুম, বিশ্রাম এবং মানসিক স্বাস্থ্যের প্রতি নজর রাখতে হবে। ডিজিটাল/অনলাইনের মাধ্যমে পরিবার ও বন্ধু-বান্ধবদের সঙ্গে যোগাযোগের ব্যবস্থা রাখা যেতে পারে।
৫. খেলা ও প্রশিক্ষণের সময় ব্যক্তিগত পানির বোতল ও তোয়ালে ব্যবহার করতে হবে। ব্যক্তিগত সরঞ্জাম এবং জামা-কাপড় নিজস্ব ব্যাগে রাখতে হবে। টিস্যু, রুমাল বা অন্যান্য ব্যবহৃত উপকরণ যেমন প্লাস্টার, ব্যান্ডেজ ইত্যাদি তাৎক্ষণিকভাবে উপযুক্ত পাত্রে (মুখবন্ধ ময়লার পাত্র) ফেলে দিতে হবে।
৬. অধিক জনসমাগম না করে সীমিত আকারে খেলাধুলার আয়োজন করা যেতে পারে। মাঠে প্রবেশ ও বাহির হওয়ার সময় দর্শকদের সারিবদ্ধভাবে পরস্পর হতে এক মিটারেরও বেশি দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। মাঠে প্রবেশের পর নির্দিষ্ট দূরত্ব (১ মিটার) বজায় রেখে বসার ব্যবস্থা করতে হবে। পাশাপাশি দুইজন দর্শকের মাঝে এক সিট খালি রাখতে হবে।
৭. খেলার মাঠে প্রবেশ পথে খেলোয়াড়, প্রশিক্ষক, ম্যানেজমেন্ট কমিটি এবং বহিরাগত দর্শনার্থীদের (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে) শরীরের তাপমাত্রা মাপার ব্যবস্থা রাখতে হবে। এক্ষেত্রে যাদের শরীরের তাপমাত্রা ৯৮.৪ ডিগ্রি ফারেনহাইটের বেশি হবে, তাদের মাঠে প্রবেশ নিষিদ্ধ করে নিকটস্থ স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রে পাঠাতে হবে।
৮. খেলোয়াড়, প্রশিক্ষক/কোচ এবং ম্যানেজমেন্ট কমিটির মধ্যে কোভিড-১৯ এর সন্দেহভাজন কোনো রোগী থাকলে তাৎক্ষিণকভাবে আইসোলেশনের ব্যবস্থা করতে হবে।
৯. খেলার মাঠের আবর্জনা প্রতিদিন পরিষ্কার করতে হবে এবং আবর্জনা সংরক্ষণকারী পাত্র প্রতিদিন জীবাণুমুক্ত করতে হবে।
১০. স্টেডিয়ামে আগত সবাইকে স্বাস্থ্য বিষয়ে সচেতন করার জন্য সহজে দৃশ্যমান হয় এমন স্থানে বিলবোর্ড, রেডিও, ভিডিও ও পোস্টারের মাধ্যমে সচেতনতামূলক বক্তব্য প্রচার করার ব্যবস্থা করতে হবে।
প্রতিমন্ত্রী করোনাকালে অসহায় ক্রীড়াবিদ ও ক্রীড়া সংগঠকদের জন্য সরকারের গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করে বলেন, শুরু থেকেই আমরা আমাদের অসহায় ক্রীড়াবিদ ও ক্রীড়া সংগঠকদের আর্থিকভাবে সহায়তা করে আসছি। প্রথম দফায় আমরা এক হাজার ক্রীড়াবিদকে এক কোটি টাকা দিয়েছি।

পরবর্তীতে আমরা আরও তিন কোটি টাকা দেশের তৃণমূল পর্যায়ের প্রায় চার হাজারের অধিক অসহায়, দুঃস্থ ক্রীড়াবিদ, ক্রীড়া সংগঠক ও ক্রীড়া সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের মধ্যে বিতরণ করি। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী আমাদের আরও ১০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন। আমরা সেটিও দীর্ঘ মেয়াদে রেখে খেলোয়াড়দের পাশে থাকতে চাই।
স্বাস্থ্যবিধি মেনে খেলাধুলা ও প্রশিক্ষণ কার্যক্রমে অংশ নিতে সবার প্রতি আহ্বান জানান প্রতিমন্ত্রী।
সভায় যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আখতার হোসেনসহ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।


সমস্ত পুরানো খবর




themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin