বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ১২:৫৮ অপরাহ্ন



সড়ক পরিবহণ আইন- ২০১৮ যথাযথ বাস্তবায়ন জরুরি

সড়ক পরিবহণ আইন- ২০১৮ যথাযথ বাস্তবায়ন জরুরি


শুভ প্রতিদিন ডেস্ক : পরিবহণ খাতের অব্যবস্থাপনা, দুর্ঘটনা নিয়ে নতুন করে বলার অপেক্ষা রাখে না। পত্রপত্রিকার পাতা উল্টালেই প্রতিনিয়তই দুর্ঘটনায় মৃত্যুসহ নানা ধরনের অনাকাক্সিক্ষত ঘটনার চিত্র পরিলক্ষিত হয়, যা অত্যন্ত উদ্বেগের। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে ‘সড়ক পরিবহণ আইন ২০১৮’-এর খসড়া অনুমোদন দেয়া হয়েছে। জানা যায়, বেপরোয়াভাবে বা অবহেলা করে গাড়ি চালানোর কারণে দুর্ঘটনায় কেউ গুরুতর আহত বা কারও মৃত্যু হলে চালককে সর্বোচ্চ ৫ বছর কারাদণ্ড বা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ড দেয়া হবে।

তবে তদন্তে যদি দেখা যায়, উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে চালক বেপরোয়া গাড়ি চালিয়ে হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছেন, তাহলে দণ্ডবিধির ৩০২ ধারা অনুযায়ী শাস্তি দেয়া হবে। অর্থাৎ সাজা হবে মৃত্যুদণ্ড। এ ক্ষেত্রে তদন্ত সাপেক্ষে এবং তথ্যের ওপর ভিত্তি করে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ধারা নির্ধারণ করবে। প্রসঙ্গত, এমন এক সময়ে সরকার সড়ক পরিবহণ আইনের খসড়া অনুমোদন করলো, যখন সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর জন্য দায়ী চালকের মৃত্যুদণ্ডের দাবিতে রাজধানীসহ সারাদেশে আন্দোলন করেছে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা। আমরা বলতে চাই যে, সড়ক পথের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে এবং দুর্ঘটনা রোধে আইন প্রণয়নের পাশাপাশি আইনের সুষ্ঠু প্রয়োগ ঘটাতে হবে সংশ্লিষ্টদেরকেই। মনে রাখতে হবে যে, আইন থাকলেও তার বাস্তবায়ন যথাযথভাবে হয় না এমন অভিযোগ আছে নানা ক্ষেত্রেই।

ফলে আইন প্রয়োগের ক্ষেত্রে প্রয়োজনে সংশ্লিষ্টদেরকে কঠোর পদক্ষেপ নিশ্চিত করতে হবে। উল্লেখ্য, বর্তমানে ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া গাড়ি চালানোর শাস্তি সর্বোচ্চ ৪ মাসের জেল বা ৫০০ টাকা অর্থদণ্ড। নতুন আইনে এজন্য ৬ মাসের জেল ও ২৫ হাজার টাকা অর্থদণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে। নতুন আইনে রেজিস্ট্রেশন ছাড়া গাড়ি চালানোর শাস্তি ৬ মাসের জেল বা ৫০ হাজার টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ড রাখা হয়েছে। আগে এ অপরাধের সাজা ছিল ৩ মাসের জেল বা দুই হাজার টাকা জরিমানা। ফিটনেসবিহীন গাড়ির জরিমানা বর্তমানে সর্বোচ্চ ৩ মাসের জেল বা দুই হাজার টাকা জরিমানা থাকলেও নতুন আইনে তা ৬ মাসের জেল বা ২৫ হাজার টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ডের প্রস্তাব করা হয়েছে বলে জানা যায়।

এ ছাড়া গাড়ির চেসিস পরিবর্তন, জোড়া দেয়া, বডি পরিবর্তন করার শাস্তি ২ বছরের কারাদণ্ড বা পাঁচ হাজার টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ড ছিল, সেটাকে বাড়িয়ে ১ থেকে ৩ বছরের কারাদণ্ড বা তিন লাখ টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ডের প্রস্তাব করা হয়েছে। অদক্ষ চালক নিয়োগ করলে মালিকদের সাজা হবে কি-না এমন প্রশ্নের পরিপ্রেক্ষিতে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেছেন, চুক্তি করতে হলে চালকের ড্রাইভিং লাইসেন্স লাগবে, আর শ্রম আইন অনুযায়ী মালিক ও চালককে চুক্তিপত্র করতে হবে। নতুন আইন পাস হলে ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়ার জন্য বয়স কমপক্ষে ১৮ বছর হতে হবে। আর পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স পেতে চাইলে বয়স হতে হবে ২১ বছর। অষ্টম শ্রেণি পাসের সনদ না থাকলে কেউ ড্রাইভিং লাইসেন্স পাবেন না।

বর্তমান আইনে শিক্ষাগত যোগ্যতার বিষয়টি ছিলো না। এ ছাড়া বর্তমান আইনে অপরাধ জামিনযোগ্য হলেও নতুন আইনে অপরাধ অজামিনযোগ্য বলেও জানা যায়। সর্বোপরি আমরা বলতে চাই, আইন অনুযায়ী যথাযথ পদক্ষেপ নিশ্চিত করার মধ্য দিয়ে দুর্ঘটনা কমে আসবে এমনটি কাম্য। নতুন আইন নিয়ে বিভিন্ন ধরনের মতামতও সামনে এসেছে। নামের বিচারেই ‘সড়ক পরিবহণ আইন’ যথার্থ হয়নি। এটি হওয়ার কথা ছিলো ‘সড়ক পরিবহণ ও সড়ক নিরাপত্তা আইন’ বলে মত ব্যক্ত করেছেন ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ এর চেয়ারম্যান। তিনি বলেছেন, সবচেয়ে বেশি জরুরি ছিল দুর্ঘটনা প্রতিরোধে ব্যবস্থা নেয়া। ‘আইনটি আমাদের বিবেচনায় অগ্রহণযোগ্য’ বলেও তিনি মতামত দিয়েছেন। মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ বলেছেন, দুর্ঘটনার তদন্ত যাতে প্রশ্নবিদ্ধ না হয়। আমরা বলতে চাই, সামগ্রিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে সংশ্লিষ্টদেরই। সড়ক পথে দুর্ঘটনা রোধ করা এবং পরিবহণ খাতের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার লক্ষ্যে আইনের যথার্থ প্রয়োগ নিশ্চিত হোক এমনটিই আমাদের প্রত্যাশা।


সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin