শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:২৯ পূর্বাহ্ন


হাওররক্ষা বাঁধের বকেয়া বিলের আদায়ে উপজেলা পিআইসিদের দৌড়ঝাপ

হাওররক্ষা বাঁধের বকেয়া বিলের আদায়ে উপজেলা পিআইসিদের দৌড়ঝাপ


শেয়ার বোতাম এখানে

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলায় পানি উন্নয়ন বোর্ড পাউবোর উদ্যোগে নির্মিত হাওররক্ষা বাঁধের কাজ শেষ হলেও প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি পিআইসির সাথে জড়িতরা বিল পাচ্ছেননা বলে অভিযোগ উঠেছে। এবার ২০ কোটি টাকা ব্যয়ে ১০২টি প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি (পিআইসি) গঠনের মাধ্যমে বাঁধের কাজ শুরু হয়। একজন সভাপতি ও একজন সদস্যসচিব ও কমপক্ষে ৩জন কৃষক নিয়ে কমপক্ষে ৫ জন সদস্য সমন্বয়ে গঠন করা হয় প্রতিটি পিআইসি। এসব পিআইসির সাথে জড়িত রয়েছেন প্রায় ৫ শতাধিক কৃষক। তাদের দাবী ইতিমধ্যে শতভাগ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। কিন্তু কাজ শেষ করলেও ৪০ ভাগ বকেয়া বিল পাচ্ছেননা তারা। কর্তৃপক্ষ মাত্র ৩টি বিলের আওতায় প্রত্যেক পিআইসিকে সর্বোচ্চ ৪০-৬০% বিল প্রদান করেছেন। পুরো বিল না পাওয়ায় পিআইসিরা ঋনদাতাদের কাছে নানাভাবে নাজেহাল হচ্ছেন বলেও জানা গেছে। বাঁধের কাজ করতে গিয়ে অনেকেই বাড়ি জমি ও গবাদিপশু বিক্রয় করেছেন। কেউ কেউ ১০% থেকে ২০% হারে সুদ দিয়ে টাকা সংগ্রহ করে বাঁধের কাজ সম্পন্ন করেছেন। কিন্তু কর্মকর্তারা দেই দিচ্ছি করে বিল প্রদানে গড়িমশি করায় তাদের সকল আশাই এখন গুড়েবালি হয়ে দাড়িয়েছে। বিশেষ করে এস্কেভেটর (মাটি কাটার) মেশিন মালিকদের পাওনা ও বাঁধের কাজে দৈনন্দিন ৫শত থেকে ৭ শত টাকা মজুরীর ভিত্তিতে নিয়োজিত শ্রমিক মজুরদের প্রাপ্য টাকা পরিশোধ করতে গিয়ে পিআইসির সভাপতি-সদস্যসচিবদের হিমশিম খেতে হচ্ছে। অনেকে পাওনাদারদের চাপে বাড়িঘর ও পরিবার পরিজন ফেলে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন বলেও জানা গেছে। তাদের বক্তব্য কাজ শেষ হয়েছে দেড়মাস আগে। হাওরগুলোর ফসল কাটাও শেষ হয়েছে। এরপরও অন্যায় অজুহাতে তাদের বিল প্রদান করা হচ্ছেনা। ফলে বকেয়া বিল প্রদানের দাবী পিআইসিদের প্রাণের দাবীতে পরিণত হয়েছে।
সরজমিনে গিয়ে দিরাই উপজেলার চরনারচর ইউনিয়নের ৩৭নং পিআইসির সভাপতি কনার হোসেন,৫১ নং পিআইসির সভাপতি চন্দন কুমার তালুকদার,দিরাই সরমঙ্গল ইউনিয়নের ৫নং পিআইসির সভাপতি দুলাল আহমদ,৬নং পিআইসির সভাপতি এহসান চৌধুরী,৩৯ নং পিআইসির সভাপতি মোশাহিদ মিয়া,৪৩ নং পিআইসির সভাপতি মুরাদ মিয়া,৪৩ক পিআইসির সভাপতি শহীদুল ইসলাম স্বাধীন,৪৩খ নং পিআইসির সভাপতি সমুজ আলী,করিমপুর ইউনিয়নের ৫৮নং পিআইসির সভাপতি করম উদ্দিন,৫৯নং পিআইসির সভাপতি গৌরাঙ্গ তালুকদার,৫৯ক নং পিআইসির সভাপতি ওয়াহাব আলী,কুলঞ্জ ইউনিয়নের ৬৬ নং পিআইসির সভাপতি গোলাম রব্বানী,৬৬ক নং পিআইসির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রউফ,৭১নং পিআইসির সভাপতি চান মিয়া চৌধুরী,৭১ক নং পিআইসির সভাপতি তোফায়েল আহমদ চৌধুরী,৬৪ নং পিআইসির সভাপতি আলাউর রহমান তালুকদার,৬১নং পিআইসির সভাপতি আসাদ চৌধুরী,১৯নং পিআইসির সভাপতি আবুল বশর,৬৩নং পিআইসির সভাপতি মান উল্লা,৯৩নং পিআইসির সভাপতি গউছ মিয়া চৌধুরী,৯৩ক নং পিআইসির সভাপতি আবুল কালাম চৌধুরী,রফিনগর ইউনিয়নের ২৫ক নং পিআইসির সভাপতি ইয়াজ উদ্দিন,২৬নং পিআইসির সভাপতি ফখরুল ইসলাম,২৭ নং পিআইসর সভাপতি পৃথেশ রঞ্জন সরকার,৪৫ক নং পিআইসির সভাপতি ইউপি চেয়ারম্যান রেজুয়ান হোসেন খান,৪৬নং পিআইসির সভাপতি নারায়ন চক্রবর্তী,৪৭ নং পিআইসির সভাপতি দিজেন্দ্র মজুমদার,ভাটিপাড়া ইউনিয়নের ৯২ নং পিআইসির সভাপতি রাছিন চৌধুরী,৭০ নং পিআইসির সভাপতি মাহমুদুল হাসান চৌধুরী সিরাজ,তাড়ল ইউনিয়নের ২নং পিআইসির সভাপতি আবুল বায়েস,৪নং পিআইসির সভাপতি নুরে আলম চৌধুরী,৯ নং পিআইসির সভাপতি আবুল মিয়া,১১নং পিআইসির সভাপতি ওয়াসিউর রহমান চৌধুরী,১১ক নং পিআইসর সভাপতি সিরাজুল হক চৌধুরী,১১গ নং পিআইসির সভাপতি হুমায়ূন কবির চৌধুরী,১২ক নং পিআইসির সভাপতি শামীম চৌধুরী,১৩নং পিআইসির সভাপতি আব্দুস সালাম,১৪নং পিআইসির সভাপতি আব্দুস ছাত্তার,১৪ক নং পিআইসির সভাপতি ধীরু তালুকদার,১৫ নং পিআইসির সভাপতি গোলাম রব্বানী,১৬নং পিআইসির সদস্যসচিব নজরুল ইসলাম চৌধুরী,২৮নং পিআইসির সভাপতি আতাউর রহমান চৌধুরী,২৯নং পিআইসির সভাপতি নজরুল ইসলাম চৌধুরী,৩০নং পিআইসির সভাপতি আলেক মিয়া চৌধুরী,৩৩নং পিআইসির সভাপতি শামসুল হক,জগদল ইউনিয়নের ৭৭নং পিআইসির সভাপতি তাজুদ মিয়া,৮৭নং পিআইসির সভাপতি অসীম তালুকদার,৬৭নং পিআইসির সভাপতি ছানা মিয়া,৬৭ক নং পিআইসির সভাপতি আঙ্গুর মিয়া,৮৩নং পিআইসির সভাপতি শাহাব উদ্দিন,৭৬নং পিআইসির সভাপতি আব্বাস মিয়া,৭৯গ নং পিআইসির সভাপতি হাবিবুর রহমান, ৮৪নং পিআইসির সভাপতি সামসুজ্জামান,৮২নং পিআইসির সভাপতি দিল আমিন,৮০নং পিআইসির সভাপতি মনিরুজ্জামান চৌধুরী,৮৫নং পিআইসির সভাপতি আবু তাহের,৮৬ক নং পিআইসির সভাপতি সুজানুর রহমান,৮৬ নং পিআইসির সভাপতি মিজানুর রহমান চৌধুরী,৮৫ক নং পিআইসির সভাপতি দিলার হোসেন চৌধুরী,৮৯নং পিআইসির সভাপতি দবিরুল ইসলামকে বাঁধের কাজে ব্যস্ত সময় অতিবাহিত করতে দেখেন জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা। তারা প্রত্যেকটি বাঁধের কাজেই সন্তোষ প্রকাশ করেন। সকলেই দাবী করেন দূর্বা ঘাস লাগানোসহ বাধের কাজ শতভাগ সম্পন্ন করা হয়েছে এবার। এবং এবারের মতো কোন বছরই এত গুরুত্বের সাথে বাঁধের কাজ করা হয়নি। তারপরও এপ্রিল মাস অতিবাহিত হওয়া স্বত্তেও বাঁধের কাজে নিয়োজিত পিআইসিদের বকেয়া ৪০% বিল এখনও প্রদান করা হয়নি। ফলে ঋনদাতাদের চাঁপে ও পাউবোর সেকশন অফিসার (এসও) এর দূর্ব্যবহারের কারণে কোন কোন পিআইসির সভাপতি ও সদস্যসচিবদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মৃত্যুবরন করা ছাড়া পিআইসিদের সামনে এই মুহুর্তে আর পালিয়ে বেড়ানোরও কোন উপায় নেই বলে জানান তারা।
অনেকে বলেন,পাউবোর সেকশন অফিসার (এসও) রিপন আলী পিআইসিদের সাথে হুমকী ধমকি প্রদান ছাড়াও মারাত্মক অন্যায় আচরন করেছেন। বিশেষ করে তাড়ল ইউনিয়নের কয়েকটি পিআইসির সভাপতি,সদস্য সচিব ও সদস্যদের সাথে তার অন্যায় আচরন হচ্ছে অমানবিক। তাই কোন পিআইসিরা ক্ষতিগ্রস্থ হলে তজ্জন্য এসও রিপন আলীই দায়ী হবেন বলে অভিযোগ উত্থাপন করেছেন তারা। এ অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চেয়ে এস্ও রিপনের মুঠোফোনে একাধিকবার কল করেও তার কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি।
এবিষয়ে ভারপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহী অফিসারের দায়িত্বে থাকা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) বিম্বজিৎ দেব বলেন, দিরাই উপজেলা কাজের বিনিময়ে টাকা (কাবিটা) স্কীম প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি দায়িত্বপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) শরিফুল ইসলাম দেশের বাইরে আছেন। তিনি ৭ মে কর্মস্থলে ফিরে বকেয়া বিল পরিশোধ করবেন। বাঁধের কাজ শতভাগ সম্পন্ন হয়েছে। দিরাই উপজেলায় ২০ কোটি টাকা ব্যয়ে ১০২টি প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি পিআইসির মাধ্যমে বাঁধের কাজ আমরা সম্পন্ন করেছি। দুএকটি পিআইসিতে সমস্যা থাকলেও মোটামোটি সবগুলো পিআইসিই কাজ সুষ্ঠভাবে সম্পন্ন করেছে। আসলে ফসল কাটা শেষ করার জন্য বিল প্রদান স্থগিত রাখা হয়েছিল। ইতিমধ্যে ফসল তোলাও শেষ হয়েছে। এখন সকল পিআইসিদেরকে তাদের বকেয়া বিলের টাকা অর্থাৎ চতুর্থ বিল পরিশোধ করবো।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin