রবিবার, ১৬ Jun ২০২৪, ১২:৪৬ অপরাহ্ন


হারিয়ে যাচ্ছে চুঙাপিঠা

হারিয়ে যাচ্ছে চুঙাপিঠা


শেয়ার বোতাম এখানে

আব্দুর রহমান শাহীন, জুড়ী : “আমার গাঁও তে যাইতায়নি চুঙা পিঠা খাইতায়নি . . . . . . . . . . .” এখন আর ঐতিহ্যবাহী চুঙা পিঠা নিয়ে গ্রামীণ জনপদের মানুষের মুখে এমন সিলেটী গান আর শুনা যায় না। আমাদের দেশের চিরচেনা ঐতিহ্যবাহী কয়েকটি দেশীয় পিঠার মধ্যে চুঙাপুড়া পিঠা অন্যতম। আগেকার দিনে অগ্রহায়ণ ও পৌষ মাসের শীতের সময়ে গ্রাম বাংলার প্রতিটি ঘরে ঘরে এ পিঠার ব্যাপক প্রচলিত ছিল। পাহাড় থেকে চুঙার বাঁশ (ঢলু) সংগ্রহ করে এর ভিতরে নতুন চালের গুড়ো ঢুকিয়ে আমন ধানের খড়ের আগুনে পুড়ে সাধারণত এ পিঠা তৈরি করা হয়। চুঙাপিঠা আগুনে পুড়ার সময় ছোট, বড় ও মাঝারি পরিবারের সকলের হইচই জমে উঠতো উঠানের কোনে। আশপাশ থেকে ছুটে এসে যোগ দিতেন পাড়া প্রতিবেশীরাও। গ্রাম বাংলার চিরচেনা ঐতিহ্যবাহী সেই দৃশ্য এখন আর চোখে পড়ে না। সময়ের ব্যবধান আজ প্রায় বিলুপ্ত হয়ে গেছে।
প্রবীণদের মতে, এখন সেই আগের মতো পাহাড়-জঙ্গল না থাকায় ঐতিহ্যবাহী চুঙা পিঠার বাঁশ (ঢলু বাঁশ) সহজে পাওয়া যায় না। বাঁশ সংগ্রহ করা কষ্ঠকর ব্যাপার হয়ে পড়েছে। প্রতিনিয়ত পাহাড়-জঙ্গলের সংখ্যা কমতে শুরু হয়েছে। পাহাড়-জঙ্গলের স্থলে স্থান করে নিচ্ছে অর্থ উপার্জনকারী বিভিন্ন ধরণের গাছ ও বাগানের সংখ্যা।
অনুসন্ধানে জানা যায়, উপজেলার ছোট/বড় স্থানীয় বিভিন্ন পাহাড়, যেমন লাঠিটিলা, হরমা ও উজান পাহাড়ই ছিল ঢলুবাঁশের জন্য বিখ্যাত। বন ও ভ’মি দস্যুদের কবলে পড়ে সেই পাহাড়গুলো মরুভ’মিতে পরিণত হচ্ছে। হারাচ্ছে প্রাকৃতিক স্বসৌন্দর্য্য, অস্তিত ও পাহাড়ী অনেক ঐতিহ্য।
সচেতন মহল মনে করেন, বনবিভাগের উদাসীনতায় বিগত কয়েক বছরে মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলায় প্রতিযোগীতা মূলক যেভাবে পাহাড় কাটা হয়েছে, সে অনুযায়ী অত্রাঞ্চলে চুঙার বাঁশসহ অনেক ঐতিহ্যবাহী পাহাড়ি সম্পদ দৃশ্য থেকে অদৃশ্য হয়ে গেছে। এ কারণেই অদুর ভবিষ্যতে চুঙা পিঠার নামও থাকবে কি না, তা আজ দুশ্চিন্তার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin