বৃহস্পতিবার, ০৫ অগাস্ট ২০২১, ০৯:৩৮ পূর্বাহ্ন


হাসপাতালে স্ত্রীর লাশ রেখে স্বামীর পলায়ন

হাসপাতালে স্ত্রীর লাশ রেখে স্বামীর পলায়ন


শেয়ার বোতাম এখানে

হবিগঞ্জ সংবাদদাতা:

হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলায় স্বামী তার পরিবারের বিরুদ্ধে দুই সন্তানের জননীকে যৌতুকের জন্য পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে।

বৃহস্পতিবার (২৫ জুন) সন্ধ্যায় হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ওই গৃহবধূর মৃত্যু হয়। এ ঘটনার পর হাসপাতালে স্ত্রীর মরদেহ রেখে পালিয়ে যান স্বামী লিটন মিয়া। খবর পেয়ে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

নিহতের পরিবারের সদস্যরা জানান, উপজেলার কুশিয়ারতলা গ্রামের মোহাম্মদ আলীর মেয়ে মনোয়ারা বেগমকে (২৫) একই উপজেলার নোয়াগাঁও গ্রামের আকবর আলীর ছেলে লিটন মিয়ার কাছে পাঁচ বছর আগে বিয়ে দেয়া হয়। বিয়ের পর থেকে লিটন মিয়াসহ তার পরিবারের লোকজন মনোয়ারাকে যৌতুকের জন্য নির্যাতন করে আসছিল। এরই মধ্যে দুই সন্তানের মা হন মনোয়ারা। দুই কন্যা সন্তানের জন্ম হওয়ার পর থেকে লিটনের নির্যাতন আরও বেড়ে যায়। কন্যা সন্তানের মুখের দিকে তাকিয়ে সংসার করে আসছিলেন মনোয়ারা।

নিহত মনোয়ারার বাবা মোহাম্মদ আলী বলেন, গত তিনদিন ধরে লিটন মিয়া মনোয়ারাকে মারপিট করে আসছে। মনোয়ারা ফোন করে বিষয়টি আমাকে জানায়। বৃহস্পতিবার বিকেলে মনোয়ারা জানায় তাকে আবারও মারধর করেছে লিটন। এর কিছুক্ষণ পরই লিটন ফোন করে আমাকে জানায় মনোয়ারা বিষপান করেছে। তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। খবর পেয়ে হাসপাতালে গিয়ে দেখি মনোয়ারার মরদেহ পড়ে আছে। মরদেহের পাশে স্বামী ও তার পরিবার কেউ নেই।

তিনি বলেন, মনোয়ারার শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তাকে তার স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন হত্যা করেছে। আমি মেয়ে হত্যার বিচার চাই।

বানিয়াচং থানা পুলিশের ওসি মোহাম্মদ এমরান হোসেন বলেন, মনোয়ারা ইঁদুরের ওষুধ খেয়ে আত্মহত্যা করেছে বলে শুনেছি। তবে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এলে নিশ্চিত হওয়া যাবে কিভাবে মারা গেছে। তার স্বামী পলাতক। তাকে আটকের চেষ্টা চলছে।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin