সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১২:৪০ অপরাহ্ন


শবেবরাতের রাত্রে লবন দিয়ে খেয়েছি, লোকলজ্জায় হাত পাততে পাচ্ছিনা: করোনায় অসহায় মধ্যবিত্তরা

শবেবরাতের রাত্রে লবন দিয়ে খেয়েছি, লোকলজ্জায় হাত পাততে পাচ্ছিনা: করোনায় অসহায় মধ্যবিত্তরা


শেয়ার বোতাম এখানে

মো. শাফী চৌধুরী:
হাফিজুর রহমান (ছদ্মনাম)। পেশায় একজন হার্ডওয়্যার ব্যবসায়ী। স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে থাকেন নগরীর একটি ভাড়া বাসায়। ছোটখাটো এ ব্যবসা করে স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে বেশ ভালই চলছিলো তার পরিবার। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের প্রেক্ষাপটে দেশজুড়ে অঘোষিত লকডাউনে নিম্নবিত্তরা সরকারি বেসরকারি সাহায্য-সহযোগিতা পেলেও হাফিজুর রহমানের মতো মধ্যবিত্তদের বড় একটি অংশ হয়ে পড়েছে অসহায়।

স্বাভাবিক কাজকর্ম বন্ধ থাকায় তাদের আয়-রোজগার নেই। লোকলজ্জা ও সামাজিক মর্যাদাহানির ভয়ে প্রয়োজনীয় নিত্যপণ্য কিনতে না পারলেও কাউকে কিছু না বললেও বর্তমানে মধ্যবিত্তদের অবস্থা নিম্ন আয়ের মানুষের চেয়েও খারাপ।

একই অবস্থা সিলেটের বেসরকারী কোম্পানীতে চাকুরী করা আরেক তরুণের। তিনি জানান, ৪ মাস হয়েছে চাকুরীতে জয়েন করেছি ১৭ হাজার টাকা বেতনে। এখনো চাকরীটা স্থায়ী হয়নি।কিন্তু ৪ মাসের মাথায় গত ২৫ মার্চ সরকার করোনা ভাইরাস নিয়ন্ত্রনে দেশব্যাপী সাধারণ ছুটি ঘোষনা করে। এতে করে তার কোম্পানী সকল কর্মচারীদেরও ছুটি ঘোষনা করে।

গত ৫ তারিখে মার্চ মাসের বেতন পেয়েছি। এপ্রিলে কোন কাজ নেই। এর মাঝে ছুটির মেয়াদ বাড়ায় এপ্রিল মাসে বেতন পাওয়া না পাওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তা আছি। এ মাসের শেষের দিকে আবার রমজান শুরু। তখন জিনিসপত্রের দাম বেড়ে যায়। অর্থাৎ মধ্যবিত্তের ওপর দিয়ে বড় ঝড়টাই বয়ে যাবে।

সরকার ও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনগুলো শুধু দরিদ্রদের খবর নেয় তাদের ত্রাণ দেয়। আমাদের মত মধ্যবিত্তদের খবর কেউ নেয় না। আসলেই মধ্যবিত্ত হয়ে জন্ম নেওয়াটা আজন্ম পাপ হয়ে দাঁড়িয়েছে আমাদের।
কথা হয় তরুণ উদ্যোক্তা তালহার সাথে। তিনি প্রাইভেট একটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কম্পিউটার প্রযুক্তি বিদ্যায় স্নাতক সম্পন্ন করে বেকার তুরুণদের কম্পিউটারের বিভিন্ন কোর্ষ করিয়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কর্মসংস্থানে সুযোগ করে দিচ্ছেন তাদের।

গত মার্চ মাস থেকে সরকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষনার পর থেকে বন্ধ হয়ে যায় তালহার প্রতিষ্ঠানটি। গত ১মাস যাবৎ বন্ধথাকায় তিনি পড়েছেন আর্থিক সমস্যায়। ঘরে জমানো যে টাকা ছিল তা দিয়ে গত মাস চলেছেন আরো যদি এমন চলতে থাকে আগামীর দিনগুলো কেমনে পার করবেন তা নিয়ে চিন্তিত তিনি। তিনি বলেন, ।

চলতি মাসে ব্যবসা থেকে কোনো আয় না হলেও ব্যয়ের খাতা বন্ধ হয়নি। পরিবারের ব্যয় আমাকে বহন করতে হয়। ব্যবসা ছাড়া অন্য ইনকাম নেই আমার। প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখেও মালিককে দিতে হচ্ছে ভাড়া অন্য বাসা ভাড়া। ঋণ যে করব সে উপায়ও নেই, করোনার আতঙ্কে মানুষ পাওনা টাকাও পরিশোধ করছে না। আর এ মুহুর্তে কেউ কাউকে ঋণও দিচ্ছে না।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একটি সামাজিক সংঘঠনের কর্মী জানান, শবে বরাতের রাতে নগরীর একটি মধ্যবিত্ত পরিবারের এক কর্তা তাকে মোবাইলে এসএমএস করে জানান , ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় ঘরে কোন খাবার নেই। শবেবরাতের রাত্রে তিনি লবন দিয়ে ভাত খেয়েছেন। বাজার করার মত টাকা তার কাছে নেই। লোকলজ্জার ভয়ে কারো কাছে হাত পাততে পাচ্ছেন না। সবাই গরীবদের সাহায্য করছে। কিন্তু আমাদের মত মধ্যবিত্তদেও সাহায্য করছে না। এসএমএস পাওয়ার পর সামাজিক সংগঠনের এ কর্মী উনার বাসায় খাদ্যসামগ্রী পৌছে দেন।

প্রচন্ড হতাশা নিয়ে একইভাবে এক ইলেকট্রিক ব্যবসায়ী বলেন, ভবিষ্যৎ কোন দিকে যাচ্ছে কিছুই জানি না। স্বপ্ন ছিল একটি সুন্দর আগামী দিনের। কিন্তু সেই স্বপ্ন আজ করোনা নামক এক প্রাণঘাতী ভাইরাস ভেঙে চুরমার করে দিচ্ছে। এমন অবস্থা চলতে থাকলে হয়তো খাবার জন্যই মরতে হবে।

একরকম সিলেটজুড়ে হাহাকার চলছে মধ্যবিত্ত পরিবারগুলোতে। বৈশিক মহামারী করোনাভাইরাসের থাবা বাংলাদেশে গেড়ে বসায় এই মধ্যবিত্তদের অবস্থাও ক্রমে খারাপ হচ্ছে। তরুণ উদ্যোক্তা, মাঝারি ও ক্ষদু ব্যবসায়ী, সরকারিবেসরকারি চকুরে, দোকানদারসহ বিভিন্ন পেশায় নিয়োজিত মধ্যবিত্ত হিসেবে পরিচিতরা করোনাভাইরাসের অন্যতম শিকারে পরিণত হতে চলেছেন।

তারা বলছেন, যেকোনো দুের্যাগকালীন পরিস্থিতিতে সরকারি সহায়তা পান উচ্চবিত্ত ও নিম্নবত্তরা। মাঝখানে মধ্যবিত্তদের জন্য কোনো প্রণাদনা নেই। অথচ দ্রব্যমল্যূ, বাড়ি-দোকান ভাড়ার ঊধ্বর্গতি, জাতীয় বাজেটে পণ্যের দাম বৃিদ্ধ, সরকারি পরিষেবা গ্যাস, পানি, বিদ্যুৎ, পরিবহনসহ বাড়তি দামের পধ্রান চাপ যায় এই মধ্যবিত্তের ওপর দিয়ে।

করোনাভাইরাস সষ্টৃ পরিস্থিতিতে মানবিক কারণে বাসাভাড়া মওকফু অথবা পরে নেওয়ার দাবি উঠলেও সিলেটের অধিকাংশ বাসার মালিকরা এরই মধ্যে ভাড়ার জন্য চাপ সৃিষ্ট করেছেন। একদিকে করোনায় ছোবল থেকে বেচে থাকার লড়াই অন্যদিকে জীবিকার জন্য হাহাকার । সমাজে কারো কাছে হাত না পাতার কষ্টে । সবদিকেই যেন ভীষণ কষ্টে মধ্যবিত্তরা।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin