বৃহস্পতিবার, ০৫ অগাস্ট ২০২১, ০৯:৪৫ পূর্বাহ্ন


হোমিওপ্যাথি চিকিৎসায় মাত্র ৬ দিনে সুস্থ হলেন সিলেটের এক করোনা রোগি

হোমিওপ্যাথি চিকিৎসায় মাত্র ৬ দিনে সুস্থ হলেন সিলেটের এক করোনা রোগি


শেয়ার বোতাম এখানে

মবরুর আহমদ সাজু:

বর্তমান সময়ে সবচেয়ে মহাসংকটের নাম কোভিড ১৯ বা করোনাভাইরাস,যা বিশ্বমহামারীর আকার ধারণ করেছে। বাংলাদেশসহ পৃথিবীর প্রায় সকল দেশই এ ভাইরাসে আক্রান্ত।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে করোনার মেডিসিন ও ভ্যাক্সিন নিয়ে কাজ ও গবেষণা শুরু হলেও এর ঔষধ আবিস্কার হয় নি।

সুতারাং এমন প্রেক্ষাপটে হোমিপ্যাথি চিকিৎসায় সুস্থ হয়েছেন সিলেটের এক করোনা রোগি। তাঁর  নাম : আবু নাসের মোঃ জাকারিয়া। তিনি মৌলভীবাজার সদরের বাসিন্দা তার বয়স ৪০.বছর।

জানাযায়, আবু নাসের গত ১০ জুলাই মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে নিজের টেস্ট করালে তার রিপোর্ট পিজিটিভ আসে। পরবর্তিতে তিনি নিজ গৃহে আইসোলেশনে থাকেন। তার আক্রান্তের সংবাদ শুনে পরিবারের সদস্য : ৫ জন চিন্তিত হয়ে উঠেন।

আবু নাসের জানান, এক পর্যায়ে তিনি সিলেটের জালালাবাদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের প্রভাষক রোটারিয়ান মো.ডা নাজমুল হকের সাথে যোগাযোগ করে তাঁর কাছ থেকে হোমিও চিকিৎসা সেবা নিলে ৬ দিনের মাথায় পিজিটিভ থেকে নেগেটিভ রিপোর্ট আসে।

এ বিষয়ে মুুুুটোফোনে শুভপ্রতিদিন কে নাসের জানান, আমার ঘরের বাকি সদস্যদের লক্ষণ ছিল তবে ডা. নাজমুল হকের
নির্দেশনা অনুযায়ী  চিকিৎস্যা নিলে তারা আর্সেনিকম এলবাম ৩০ ঔষধ সেবন করেন পরবর্তিতে  তারাও ভালো হয়ে যান বলে তিনি জানান।

এবিষয়ে ডা. নাজমুল হকের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি শুভপ্রতিদিন কে জানান, মহান আল্লাহর অশেষ মেহেরবানিতে তিনি ভালো হয়েছেন।

যেকেনো রোগের ঔষধ ও চিকিৎসকরা কেবল ওছিলা মাত্র। ডা.নাজমুল জানান,হোমিওপ্যাথি হলো একটি লক্ষণভিত্তিক প্রাচীন চিকিৎসা পদ্ধতি।

যেহেতু, হোমিওপ্যাথি একটি লক্ষণভিত্তক চিকিৎসা পদ্ধতি, তাই রোগীর রোগ লক্ষণ অনুযায়ী সদৃশ হোমিওপ্যাথিক ওষুধ প্রয়োগের মাধ্যমে যেকোন রোগ আরোগ্য করা সম্ভব।

করোনা নিয়ে  এখন পর্যন্ত কার্যত সঠিক চিকিৎসা পদ্ধতি আবিষ্কার হয়নি।  এছাড়া সিলেটসহ পৃথিবীর কোন চিকিৎসা পদ্ধতিই এ চিকিৎসায় এখন পর্যন্ত উল্লেখযোগ্য সাফল্য বয়ে আনতে পারেনি।

তবে এই প্রথম সিলেটে হোমিপ্যাথি আর্সেনিকম এলবাম ৩০ খেয়ে করোনা রোগি ভালো হয়েছেন। এলোপাতি ও হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা জগতে এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হয়ে থাকলো।

ডা. নাজমুল আরো বলেন,করোনাকালীন সময়ে  হ্যানিম্যান হোমিওপ্যাথি সোসাইটির পক্ষ থেকে আমরা সিলেট বিভাগ জোড়ে ইতোমধ্যে ফ্রি আর্সেনিকম এলবাম ৩০ বিতরন করছি। এমতাবস্থায় আশার আলো দেখাচ্ছে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা পদ্ধতি। সত্যি অনেক ভালো লাগছে ।

ডা. নাজমুল হক বলেন, বাংলাদেশে হোমিওপ্যাথিক ওষুধ প্রয়োগ করে এমনি একটি আশানুরূপ নজির স্থাপিত হয়েছে রাজারবাগ পুলিশ হাসাপাতাল ও
পুরান ঢাকার স্বামীবাগে অবস্থিত ইসকন মন্দিরে। মাত্র ৭ দিনের হোমিও ওষুধ প্রয়োগ করে সুস্থ হয়েছেন ইসকন মন্দিরের পুরোহিতসহ ৩৫ জন করোনা রোগী।

এদিকে সিলেটে প্রতিদিন সকাল বিকেল করোনা রোগি বাড়ছে,সাথে রয়েছে মৃত্যুর মিছিল এমন পরিস্থিতি হোমিওপ্যাথিক ওষুধ সেবনের মাধ্যমে পুরোপুরি আরোগ্য লাভ করেছেন মাত্র এক সপ্তাহের মধ্যেই।

সিলেটের মৌলভীবাজারের আবু নাসের।
যা সম্পূর্ণ কার্যকর চিকিৎসা পদ্ধতি রূপেই প্রতীয়মান হয়েছে।

তবে এবিষয়ে সিলেটে আরেক হোমিওপ্যাথি  চিকিৎসক ডা.শরীফ শাহরিয়ার জানান, করোনায় হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকরা  ইতোমধ্যেই সাফল্যের স্বাক্ষর রেখেছেন। ফল স্বরূপ আমরা দেখতে পাই বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি সংস্থা বিশেষ করে পুলিশ বিভাগ হোমিও সেবা গ্রহণ করছেন এবং সুস্থও হচ্ছেন।

এ বিষয়ে হ্যানিম্যান হোমিওপ্যাথি সোসাইটির চিকিৎসকরা জানিয়েছেন,মাননীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তর যদি এ বিষয়ে সুদৃষ্টি জ্ঞাপন করেন তাহলে হোমিও চিকিৎসার মাধ্যমে এ করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলা করা সম্ভবপর হবে বলে তারা বিশ্বাস করেন ।

তবে হ্যানিম্যান হোমিওপ্যাথি সোসাইটি কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারন সম্পাদক ডা.নাজমুৃল হক জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ পূর্বক সুদৃঢ়চিত্তে বলতে চাই, যদি সেন্ট্রাল পুলিশ হসপিটালের ন্যায় সিলেটে প্রতিটি হসপিটালে হোমিওপ্যাথিক করোনা ইউনিট চালু করা হয়, তাহলে এ সংকটময় পরিস্থিতি সফলতার সঙ্গে মোকাবেলা করা আরও অনেক সহজতর হবে।

আমাদের বিনীত অনুরোধ এলোপাতির পাশাপাশি হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকদের যেন সে সুযোগে দেয়া হয়


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin