রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:৪৩ পূর্বাহ্ন


বছর জুড়ে যা কিছু সিলেটে আলোচিত

বছর জুড়ে যা কিছু সিলেটে আলোচিত


শেয়ার বোতাম এখানে

সালতামামী একরে ভিতর সব

মবরুর আহমদ সাজু:
ভালোমন্দের একটা বছর। ভাঙাগড়ার বছর। কারো প্রাপ্তির, কারো হারানোর বছর। বারো মাসের একটা গোলবৃত্তে ঘুরছে পৃথিবী। ঠিক ঘড়ির কাঁটার মতো। পুরোটা ঘুরে বারোতে এসে থামলেই আবার নতুন দিন গণনা। এই নিয়মেই চলছে পৃথিবী। হয়তো এভাবেই চলবে অনন্তকাল। কালের পুরক্রমায় ২০১৯ সালের বর্ষপঞ্জিটি পুরোনো হয়ে গেল, অথচ বছরের শুরুতে কী যতেœই-না সেঁটে দেওয়া হয়েছিল দেয়ালে। সময়ের আলপনা যতনা সুন্দর ছিল ততটাই যেন বছর শেষে মলিন আভায় ঝলসে উঠছে পুরোমন। সুতারাং এই যখন আয়নাবাজির ধারাপাত। তখন সারাদেশের ন্যায় সিলেটে ও নানা ঘটনা আলোচনা-সমালোচনায় পার হয়েছে সাল ২০১৯। প্রতিদিনই ভিন্ন ভিন্ন ঘটনায় আলোচনায় ছিল সিলেট। বিশেষ মহাকালের গহ্বরে ২০১৯ সালটি ছিল নানা কারণে গুরুত্বপূর্ণ। জাতীয় নির্বাচন, উপজেলা নির্বাচন আন্দোলন-সংগ্রাম, সড়ক দুর্ঘটনা, ছেলে ধরাসহ বিভিন্ন গুজব, ছাত্র সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে উত্তাল শিক্ষাঙ্গন, বেপরোয়া ছাত্রলীগ, আগুনের বিভীষিকা, দুর্ভোগের ঈদযাত্রা, মাদক-দুর্নীতিবিরোধী অভিযান, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি বাজার সিন্ডিকেট, মশার উৎপাত, ডেঙ্গুর যাতনা, বায়ু ও পরিবেশ দূষণসহ বিভিন্ন ইস্যুতে ২০১৯ ছিল সিলেটের ঘনঘটা । তবে নানা প্রতিবন্ধকতার মধ্যেও এগিয়ে চলছে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির সিলেট। আশা-হতাশার ২০১৯কে বিদায় জানিয়ে বছরজুড়ে চলমান বিভিন্ন ইস্যু উঠে এসছে শুভপ্রতিদিনের কন্ঠে যা নিয়ে লিখেছেন আমাদের প্রতিবেদক মবরুর আহমদ সাজু। জেনে নেয়া যাক তারই কিছু সারাংশ।

সিলেট নগরীর উন্নয়নে হাজার কোটি টাকার প্রকল্প
বাংলাদেশের বহুল প্রচলিত প্রবাদ বাক্য হচ্ছে, শেষ ভালো যার সব ভালো তার । কারণ, মানুষ দূর অতীতের চেয়ে সাম্প্রতিক বা নিকট অতীতকেই মূল্যায়ণ করে বেশি। তাই মানুষ তার কর্মের শেষ প্রান্তকে স্মরণীয় করার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করে। তবে সব চেষ্টা সফল হয় এমন নয়। বিধি বাম বলে একটি কথা আছে। তেমন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে বর্তমান সরকারের। কয়ক বছর যাবত উন্নয়নের মহাসড়কের বাদ্যযন্ত্র শুনতে শুনতে। অবশেষে বহুল প্রত্যাশিত সিলেট নগরীর উন্নয়নে হাজার কোটি টাকার প্রকল্প পাস করেছে সরকার। সিটি করপোরেশনের জন্মের পর থেকে সিলেটের উন্নয়নে এটাই সর্বোচ্চ বরাদ্দ। প্রকল্প পাস হওয়ায় খুশি সিলেটের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। আর পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন, সিলেটের উন্নয়নে এ ধরনের একটি প্রকল্পের গুরুত্ব অনেক। এ কারণে সরকার প্রধান সিলেটের উন্নয়নে হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন। জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় এ প্রকল্প পাস করা হয়। ‘সিলেট সিটি করপোরেশনের জলাবদ্ধতা নিরসন, বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ ও অবকাঠামো নির্মাণ’ শীর্ষক প্রকল্পে ব্যয় হবে এক হাজার ২২৮ কোটি টাকা।

সিলেটে বাবার হাতে মেয়ে,
ছাত্রদল সভাপতির হাতে প্রতিবন্ধি ধর্ষিত
চলতি বছর ২৯ আগস্ট সিলেটের ওসমানীনগরে বাবার হাতে মেয়ে ধর্ষণের ঘটনা মানবতাকে কাদিয়েছে।
সিলেটের ওসমানী নগরের দয়ামারী এলাকায় এই বাড়িটিতেই চার মেয়েকে নিয়ে বসবাস করতেন মাসুক মিয়া। প্রায় ৬ বছর আগে ৪ কন্যা সন্তান রেখে স্ত্রী মারা গেলে সন্তানদের শেষ ভরসাস্থল ছিল তাদের বাবা। বড় মেয়ে সহ অন্য দুই মেয়ে স্থানীয় মাদ্রাসায় থেকে লেখাপড়া করতো। ছুটি পেলেই চলে আসতো বাবার কাছে। পুলিশের কাছে অভিযোগের পর পরই পালিয়ে যায় নির্যাতিতা মেয়েটির জন্মদাতা পিতা। যদিও ঐদিন রাতেই সিলেটের দক্ষিণ সুরমা থানা এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয় পাষন্ড পিতাকে।এলাকাবাসী জানায়, সে যে কাজ করছে তা আমরা এই দুনিয়ায় কোনদিন শুনি নাই। এই লোকটার ফাঁসি চাই আমরা। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে নির্যাতনের বিষয়টি শিকার করেছে বলেও জানায় পুলিশ। অপরদিকে এই ঘটনার রেশকাটতে না কাটতে ছাত্রদল সভাপতির হাতে প্রতিবন্ধি ধর্ষিত হয়ে মানবতা প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে ওঠে। গত (৪ এপ্রিল) রাত ১২টা থেকে ভোর পর্যন্ত আখালিয়ায় ৩০ বছরের এ বাক প্রতিবন্ধি মহিলাকে ধর্ষণ করেন ৯নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রদলের সভাপতি মানিকুর রহমান (খট্টা মানিক)। ধর্ষিতার স্বামী জানান- দুই সন্তানের জননী বাক প্রতিবন্ধি তার স্ত্রীকে ৯নং ওয়ার্ড ছাত্রদল সভাপতি মানিক জোর করে ঘরে ডুকে রাত ১০ থেকে ১২টা পর্যন্ত ধর্ষণ করে।তখন তিনি বাইরে ছিলেন। বাসায় আসলে তার স্ত্রী থাকে ধর্ষণের কথা বলেন।পরে তিনি তার স্ত্রীকে ছবি দেখান ছবি দেখে মানিক কে শানাক্ত করেন ধর্ষিতা ।বিষয়টি জানাজানি হলে মানিক বিভিন্ন ভাবে মেনেজ করার চেষ্টাকরেন বলে জানান ধষিতার স্বামী ঝিনুক মিয়া। তখনকার সময়ে ব্যাপারে এসএমপির অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (মিডিয়া) জেদান আল মুসা প্রতিদিনকে জানান, আখালিয়ায় বাক প্রতিবন্ধিকে এক মহিলাকে ধর্ষণের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ধর্ষকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

বছরের পর বছর নেই সিলেটে ছাত্র সংসদ নির্বাচন
দীর্ঘ ২৮ বছর পর দেশের দ্বিতীয় পার্লামেন্ট খ্যাত ডাকসু নির্বাচন হলেও সারাদেশের ন্যায় সিলেটের বিশ্ববিদ্যালয় ও বড় বড় কলেজগুলোতে যুগের পর যুগ ধরে বন্ধ আছে ছাত্র সংসদ নির্বাচন। বিশিষ্টজনরা মনে করছেন, ছাত্র সংসদ নির্বাচন না হওয়ায় নতুন নেতৃত্ব তৈরি ও শিক্ষাঙ্গনের সুষ্ঠু পরিবেশ ফিরিয়ে আনা সম্ভব হচ্ছে না। দেশে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র সংসদ নির্বাচনের তথ্য তুলে ধরে ২০১৯ সালে ফেব্রুয়ারিতে। তারই ধারাবাহিকতায় সিলেটের ‘ছাত্র সংসদ নির্বাচন শিরোনামে শুভপ্রতিদিনে প্রকাশিত হয় ধারাবাহিক প্রতিবেদন। এরপর ডাকুস ছাড়া দেশের কোনো বিশ্ববিদ্যালয়েই ছাত্র সংসদ নির্বাচন আয়োজন করতে পারেনি প্রশাসন।
থেমে নেই মাদক ব্যবসা
মাদকের অপব্যবহার, অবৈধ পাচার প্রতিরোধে মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর, বাংলাদেশ পুলিশ, র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন, বাংলাদেশ বর্ডারগার্ড, বাংলাদেশ কোস্টগার্ড যৌথভাবে কাজ করছে। এরপরও অবৈধ মাদকদ্রব্যের ব্যবসা বা চোরাচালানের মাধ্যমে সহজে ধনী হওয়ার পেছনে ছুটছে অনেকেই। সরকারের বিভিন্ন অভিযানে অনেক মাদক ব্যবসায়ী, চোরাকারবারি ধরা পড়লও থেমে নেই মাদক ব্যবসা।
ঈদ যাত্রায় ভোগান্তি
স্বজনদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ উদযাপন করতে শেকড়ের টানে প্রত্যেক উৎসবেই লাখ লাখ মানুষ সিলেট নগরী ছেড়ে গ্রামে যান । প্রতিবারের মতো গত বছরও পরিবহন সংকট, টিকিটের উচ্চমূল্য, ফিটনেসবিহীন যান চলাচল, যানজট, এসি টিকিট না পাওয়া, অতিরিক্ত যাত্রী বহন, ট্রেনের টিকিট প্রাপ্তি নিয়ে ভোগান্তিসহ হাজারও কষ্ট ভোগ করতে হয়েছে ঘরমুখো মানুষকে।

এসপি ফরিদের নেতৃত ¡সিলেট জেলা পুলিশের অনন্য অর্জন:

পুলিশ নিয়ে অনেকের বিরূপ ধারণা থাকলেও সিলেটের পুলিশ সুপার (এসপি), কুমিল্লার সন্তান মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন পিপিএম সিলেটে এসে বাজিমাত করছেন। পুলিশে ধারণা সম্পূর্ণ বদলে দিয়েছেন। পুলিশ নিয়ে অনেকের বিরূপ ধারণা থাকলেও সিলেটের পুলিশ সুপার (এসপি), কুমিল্লার সন্তান মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন পিপিএম সে ধারণা সম্পূর্ণ বদলে দিয়েছেন। দুষ্টের দমন, শিষ্টের লালন নীতিতে কাজ করে তিনি সকলের কাছে প্রশংসিত হয়েছেন।২০১৯ সালের ১৩ জুন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব মোহাম্মদ হোসেন স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে সিলেটের এসপি হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। যোগদানের পর থেকেই সিলেট জেলার আইনশৃঙ্খলা রক্ষা ও নাগরিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে নিরলসভাবে কাজ করছেন তরুণ এই অফিসার। বিশেষ করে থানা গুলোতে নাগরিকদের আইনী সেবা দিতে তিনি অফিসার ইনচার্জদের প্রতি কড়া নির্দেশ দেন। জেলা পুলিশ সুপার হিসেবে যোগদানের পরপরই সিলেটের ৫ থানার ওসিকে বদলি করেন তিনি বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণের পাশাপাশি অপরাধীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেন।
উল্লেখ্য সিলেটের ইতিহাসে তিনিই একমাত্র পুলিশ সুপার যার উদ্যোগে সিলেট জেলা পুলিশের মাধ্যমে মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান ২২৯ জন বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা প্রদান করেছেন। সিলেটের ডিআইজি, কমিশনার, এসপিসহ পুলিশের পদস্থ কর্মকর্তা ও জাতির সূর্য সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধাগন একই সাথে বসে দুপুরের খাবারের আয়োজনে বীর মুক্তিযোদ্ধাগনের অশ্রুসিক্ত ভালবাসায় প্রশংসিত হন এসপি ফরিদ উদ্দিন। এছাড়াও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানে বিভিন্ন ধরনের পোশাক প্রদানে তিনি ভীষণ প্রশংসা কুড়ান। মাত্র একশত টাকা খরচের মাধ্যমে পুলিশের কনস্টেবল পদে নিয়োগ দেয়ায় দেশব্যাপী আলোচনায় নিজের স্থান করেন তিনি। পুলিশে নিয়োগ ও রদবদলে নেই তার টাকার কোনো চাহিদা। তার সততা, কর্মদক্ষতা ও নিষ্টার ফল ভোগ করছেন সিলেটবাসী। তার নিয়োগের পর থেকে সিলেটের থানাগুলোতে জিডি ও অভিযোগে কোন টাকা লাগে না। পুলিশিং কোন ধরনের হয়রানি নেই বললেই চলে। পুলিশ সুপার হিসেবে দায়িত্ব গ্রহনের পর কাজ ও কর্মে সিলেটবাসীকে চমক দেখান তিনি।
জুলাই থেকে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত সিলেট জেলায় ৩১১টি মাদক মামলা রুজু করে ৩৯০জন চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে পাঠান। জেলার বিভিন্ন থানা এলাকা থেকে ১ কোটি ৮৫ লাখ ২ হাজার ৭২১ টাকা সমমূল্যের ২১ কেজি গাঁজা। অসংখ্য পরিমাণ বিদেশি মদ ও কোটি টাকা মূল্য মানের ১কেজি হেরোইন জব্দ করতে সক্ষম হন। বিগত ৫ মাসে সিলেটের সবকটি থানায় ১ হাজার ২৩৪টি মামলার বিপরীতে ১ হাজার ২৮জন আসামীকে গ্রেফতার করে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন (পিপিএম) এর টিম। পুলিশ সুপার হিসেবে সিলেটে যোগদানের পর থেকে বেশ কয়েকটি আলোচিত ঘটনার তথ্য উৎঘাটন, জেলা আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রেখে গুজব প্রতিরোধে জনসচেতনতা সৃষ্টি করেন। বর্তমানে তিনি সিলেটের মানুষের কাছে হয়ে উঠেছেন একটি আস্থা, ভালবাসা ও নির্ভরতার প্রতীক। একজন পুলিশ কর্মকর্তার মূল কাজ জনগণের সেবা করা। বিপদাপদে তাদের পাশে থাকা পুলিশের সকল কর্মকর্তা সে দায়িত্ব পালন করেন। কিন্তু এসপি ফরিদ উদ্দিনের দায়িত্ব পালনে রয়েছে আলাদা কৌশল, সততা, নিষ্টা ও পরিস্থিতির ক্ষেত্র বোঝে সময়োচিত পদক্ষেপ গ্রহন।

২০১৯ :খুনহীন’ সিলেটের রাজনীতির এক বছর
অভ্যন্তরীণ কোন্দল, এক দলের সাথে অপর দলের সংঘর্ষ, টর্চার সেলে পিটিয়ে হত্যা কিংবা আনন্দ মিছিল থেকে সংঘাত, অস্ত্রের মহড়া, গুলিবিনিময়ের মধ্যদিয়ে লাশের রাজনীতি; এমন অবস্থা দেখে ভীতসন্ত্রস্ত সিলেটের মানুষ এবার প্রশান্তিতে একটি বছর কাটালেন। ২০১৯ সালে তাদের রাজনৈতিক কোন কর্মীর খুন দেখতে হয়নি সিলেটবাসীকে। কিংবা কোন কর্মীকেও দেখতে হয়নি রাজনৈতিক সহযোদ্ধার রক্ত। এই এক বছর রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব কিংবা সংঘাতে কেড়ে নেয়নি কোন বাবা-মার সন্তান। প্রতিশোধ কিংবা প্রতিহিংসায় হয়নি জ্বালাও-পোড়াও। তাই বলাই যায় ‘খুনহীন’ সিলেটের রাজনীতির এক বছর।
সিন্ডিকেটের দখলে বাজার পেঁয়াজ কিনতে গিয়ে গুলিবিদ্ধ
সারা বিশ্বের পবিত্র রমজান মাসে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম কমে, বিভিন্ন শপিংমলে চলে ডিসকাউন্ট অফার। কিন্তু বাংলাদেশে রমজান এলেই এক ধরনের অসাধু ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট করে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম বাড়িয়ে দেয়। ২০১৯ সালেও তার ব্যতিক্রম হয়নি। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি আর সিন্ডিকেটের দৌরাত্ম্য নিয়ে এপ্রিল ‘ মাসে এবারও সিন্ডিকেটের দখলে রোজার বাজার’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ করে শুভপ্রতিদিন। অপরদিকে পেঁয়াজ কিনতে গিয়ে গুলিবিদ্ধ: পেঁয়াজের অতিরিক্ত মূল্যবৃদ্ধির জেরে ভুগেছে সারা দেশের মানুষ। সিলেটেও ছিল একই পরিস্থিতি। এই অবস্থায় ন্যায্যমূল্যে ট্রাক সেলের পেঁয়াজ কিনতে গিয়ে হট্টগোলে দু’জন গুলিবিদ্ধ হন সিলেটে। ইতিহাস কেবল সিলেটেই। এছাড়া জনতার কাতারে দাঁড়িয়ে সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর পেঁয়াজ কেনার বিষয়টিও ছিল দেশজুড়ে আলোচিত।
একের ভিতর তিন
সুনামগঞ্জের দিরাইতে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে শিশু তুহিনকে নৃসংশভাবে হত্যা করে বাবা আব্দুল বাছির। একমাসের ব্যবধানে দোয়ারাবাজারে প্রতিবেশীকে ফাঁসাতে স্বামীকে খুন করেন স্ত্রী। এছাড়াও বছরের ভয়াবহ রেল দুর্ঘটনা হয় মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায়।
পৌষের শুরুতেই শীতের কাঁপন
কথায় আছে, মাঘ মাসের শীতে নাকি বাঘ কাঁপে। কিন্তু এবার পৌষের শুরুতেই বাঘ কাঁপতে শুরু করেছে। পৌষের শুরুতেই দেশের বিভিন্ন স্থানে জেঁকে বসেছে শীত। তীব্র শীতের প্রকোপে কাবু শহরবাসীও। শীতের সঙ্গে ঘন কুয়াশা মানুষের জীবনযাত্রাকে আরও বিপর্যস্ত করে তুলেছে। ঘন কুয়াশার কারণে ইতিমধ্যে বিমান চলাচলেও বিঘ্ন ঘটেছে। এছাড়াও যাত্রীবাহী বাস, লঞ্চ ও ট্রেন গন্তব্যে পৌঁছাতে খানিকটা বিলম্ব হচ্ছে। তীব্র শীতে গ্রামগঞ্জে বিশেষ করে হত-দরিদ্র মানুষের অবস্থা কাহিল। ছিন্নমূল মানুষের অবস্থা আরও করুণ। সবচেয়ে বিপদে আছেন খেটে খাওয়া মানুষগুলো। তীব্র শীতের কষ্ট উপেক্ষা করে তাদের যেতে হচ্ছে মাঠে-ঘাটে।

বছরজুড়ে ঘর সামলাতেই ব্যস্ত ছিল রাজনৈতিক দলগুলো।
সিলেট বিভাগে রাজনীতির মাঠে বিরোধী দলগুলোর কোনো চ্যালেঞ্জের মুখে না পড়া ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগকে বেকায়দায় ফেলেছে সহযোগী সংগঠনের কর্মকান্ড। সেই সঙ্গে দলে অনুপ্রবেশ নিয়েও অস্বস্তিতে থাকতে হয়েছে দলটির নেতাদের। বিশেষ করে সিলেটে দলীয় কর্মসূচীতে চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আশায়ই ঘুরপাক খেয়েছে বিএনপির রাজনীতি; বড় কোনো কর্মসূচিতে যেতে পারেনি দলটি। নির্বাচনের ফল প্রত্যাখ্যানের পর সংসদে যোগ দেওয়া নিয়ে বিএনপির ভেতরেই তৈরি হয়েছে প্রশ্ন। এর মধ্যে নেতাদেরও হারাতে শুরু করেছে বিএনপি।

দিক খুঁজতে হয়রান সিলেট বিএনপি
আগের বছরের মতোই দিশাহীন ছিল সিলেট নগর ও জেলা বিএনপি। বরং লক্ষ্যহীন রাজনীতিতে নিজের দলে ও জোটে সঙ্কট আরও প্রকট হয়েছে। দলীয় চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত করাকেই সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়েছিল বিএনপি; কিন্তু কীভাবে জেলা উপজেলাতে ছিলে কৌতুহুলী আইনি পথে না কি রাজপথের আন্দোলনে; তা নিয়ে দ্বিধার অবসান ঘটেনি তাদের।আইনি পথে খালেদা জিয়ার মুক্তির আশা যারা করেছিলেন, সেই মেয়র আরিফের মতো নেতারা হাল ছেড়ে এখন বলছেন, এই দাবি আদায়ের পথ এখন রাজপথ।
মুজিব বর্ষকে সামনে রেখে সিলেট বিভাগ ডিজিটাল হচ্ছে
পৃথিবীর ইতিহাসের সঙ্গে তাল মিলিয়ে প্রযুক্তির জগতেও ঘটেছে অনেক ঘটনা। বিভিন্ন ঘটন-অঘটনের মধ্য দিয়ে পার হয়েছে চলতি বছরের তথ্যপ্রযুক্তি খাত। সিলেটের ২০১৯ সাল ছিল তথ্যপ্রযুক্তির উত্থানের বছর। চতুর্থ শিল্পবিপ্লব মোকাবিলায় নানা প্রযুক্তি পণ্য উদ্ভাবন হয়েছে। সব মিলিয়ে বলা যায় গেল বছরটি ছিল তথ্যপ্রযুক্তিতে এগিয়ে যাওয়ার বছর। সিলেটে তথ্যপ্রযুক্তিতে নতুন বিপ্লবে তৈরি হচ্ছে বেকার যুবক ও কৃষকদের ডাটাবেজ । ডিজিটাল হাজিরার আওতায় আসছেন সিলেটের সাড়ে ৮ হাজার শিক্ষক। চলতি বছরের জুলাই থেকে সিলেট বিভাগের চারটি জেলার ই-ফাইলিংয়ের কাজ শুরু হয়। এ ক্ষেত্রে বেশ অগ্রগতি রয়েছে। এক্ষেত্রে সিলেটের চারটি জেলা দেশের শীর্ষ ছয়টি জেলার মধ্যে অবস্থান করছে। গেল জুলাইয়ে সিলেট ছিল ১৬তম স্থানে, এখন ৬ষ্ঠ স্থানে। সুনামগঞ্জ ১৭তম স্থানে ছিল গেল জুলাইয়ে, এখন ২য় স্থানে। হবিগঞ্জ ছিল ৩য় স্থানে, এখন যৌথভাবে ১ম স্থানে। মৌলভীবাজার ছিল ১৩তম স্থানে, এখন যৌথভাবে ১ম স্থানে আছে। সিলেট বিভাগে বিভাগে যেকোনো নাগরিক ৩৩৩ কল সেন্টারে ফোন করে এখন ৫০টির মতো সেবার আবেদন দাখিল করতে পারবেন। সিলেটে তথ্যপ্রযুক্তিতে নতুন বিপ্লব শিরোনামে ১১ ডিসেম্বর সংবাদ প্রকাশ করে শুভপ্রতিদিন।

ড.মোমেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের একবছর প্রথম বছরেই উন্নয়নের বাজিমাত

মন্ত্রণালয় হাতছাড়া হলেও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে থাকা সিলেটের কৃর্তি সন্তান সিলেট-১ আসনের এমপি ড. এ কে আব্দুল মোমেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহনের এক বছর পূর্ণ হবে। গত এক বছরে তিনি দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করা, রোহিঙ্গা ইস্যুতে বিশ্ব জনমত সৃষ্টি, অর্থনৈতিক উন্নয়ন, বিদেশী বিনিয়োগ, প্রবাসী বাংলাদেশীদের উন্নয়নের পাশাপাশি তিনি সিলেটের উন্নয়নে ব্যাপক ভূমিকা রেখেছেন। সিলেটের উন্নয়নে তিনি নতুন প্রকল্প গ্রহনের করেন। যার ফলে সিলেটের উন্নয়ন কর্মযজ্ঞ বিশেষ গতি পেয়েছে।

ডিজিটাল সিলেটের স্বপ্নদ্রষ্টা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড.  মোমেন এমপি’র গত বছরের শেষ প্রান্তের চমক ছিল সিলেট নগরীর উন্নয়নে ১২শ’ ২৮কোটি ১লাখ ৮৭হাজার টাকা জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় পাশ হওয়া। গত ২৪শে ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় এই প্রকল্প পাশ হয়।
যদিও জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পূর্বে পররাষ্ট্রমন্ত্রী সিলেটের উন্নয়নে বেশ কিছু পরিকল্পনার কথা জানিয়েছিলেন। তার মধ্যে অন্যতম ছিলো, ডিজিটাল সিলেট, ঢাকা-সিলেট ৬ লেন সড়ক নির্মাণ, সিলেট ওসমানী আর্ন্তজাতিক বিমান বন্দরের উন্নয়ন, স্বাস্থ্য সেবার উন্নয়ন,সিলেট-ঢাকা,সিলেট-চট্রগ্রাম রেলে নতুন বগি সংযুক্ত করা এবং রেল লাইনের উন্নয়ন, সিলেটের শিক্ষার উন্নয়ন, সিলেট ওসমানী আর্ন্তজাতিক বিমানবন্দরের উন্নয়ন, আইসিটিপার্ক নির্মাণ কাজের তদারকী,প্রবাসীদের উন্নয়ন এবং হয়রানী বন্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ উল্লেখযোগ্য।

বিশেষ করে‘ডিজিটাল সিলেট’ এবং ওসমানী বিমানবন্দরের কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে। সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিদ্যমান রানওয়ে ও ট্যাক্সিওয়ের শক্তি বৃদ্ধিকরণে ৪৫১ কোটি ৯৭ লাখ ৭৩ হাজার টাকার একটি প্রকল্প নেয়া হয়। সরকার অনুমোদিত প্রকল্পটি ২০১৭ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৮ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে বাস্তবায়নের কথা ছিল। পররাষ্ট্রমন্ত্রীর তদারকীতে তা এখন দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে।

ঢাকা-সিলেট ৬ লেন সড়ক কাজের অর্থ ছাড়ে সম্মতি দিয়েছে এশিয়ান ডেভলপমেন্ট ব্যাংক এডিবি।প্রকল্পটির প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছে ১৪ হাজার ১৪০ কোটি ৮৭ লাখ টাকা। চলতি সময় থেকে ডিসেম্বর ২০২৩ সাল পর্যন্ত প্রকল্পের মেয়াদ নির্ধারণ করা হয়েছে। আগামী দুই মাসের মধ্যে টেন্ডার আহ্বান করা এব।

সিলেটের মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার লক্ষে ২৫০শয্যার সিলেট জেলা হাসপাতালের কাজ শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রত্যক্ষ হস্তক্ষেপে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। ওসমানীতে ছিলো মাত্র ৩টি আইসিইউ ইউনিট এখন সেখানে ২০টি করা হয়েছে। অন্যদিকে নবজাতকের জন্য আলাদা ইউনিট করা হয়েছে। নতুন ১০ তলা ভবনের কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে আগামী এপ্রিলে তা আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হবে।

অপরদিকে শিক্ষা মন্ত্রণালয় হাতছাড়া হলেও সিলেটের শিক্ষার উন্নয়নেও নেয়া হয়েছে বেশ কিছু বাস্তবধর্মী পদক্ষেপ। ইতোমধ্যে ৬০টি স্কুলের নতুন বিল্ডিং তৈরীর কাজ শুরু হয়েছে। ১২৮টি কলেজে আড়াই কোটি থেকে ৮ কোটি টাকা সরকারের পক্ষ থেকে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

বিগত দিনের অনুসন্ধানে জানাযায়, সিলেট-ঢাকা রেল পথের উন্নয়নের জন্য পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন ডিও লেটার দিয়েছিলেন। এতে ঢাকা-সিলেট ও সিলেট-চট্টগ্রাম রেল যোগাযোগ উন্নয়নের জন্য পররাষ্ট্রমন্ত্রী চার দফা সুপারিশ করেছিলেন। তার প্রথমটি হচ্ছে জরুরি ভিত্তিতে চট্টগ্রাম-সিলেট রুটে প্রচলিত ট্রেনগুলোয় আরামদায়ক উন্নতমানের নতুন বগি সংযোজন, একই রুটের প্রতিটি ট্রেনে অন্তত দুটি করে এসি কোচ এবং এসি কার সংযোজন। দ্বিতীয় সুপারিশটি হলো সিলেট-ঢাকা রুটে নতুন একটি সরাসরি ট্রেন চালু করার। তৃতীয় সুপারিশ হলো সিলেট-ঢাকা রুটে ব্রডগেজ বা ডুয়েলগেজ (যেটি তাড়াতাড়ি সম্ভব) চালু করার এবং চতুর্থ সুপারিশটি হলো প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী সিলেট-ঢাকা ‘বুলেট ট্রেন’ চালু করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার।চিঠিতে পররাষ্ট্রমন্ত্রী উল্লেখ করেন, ‘সিলেট বাংলাদেশের আধ্যাত্মিক, প্রবাসীসমৃদ্ধ ও অন্যতম পর্যটন জনপদ। বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে প্রচুরসংখ্যক দর্শনার্থী এবং অন্যান্য পেশাজীবী এ অঞ্চলগুলো ভ্রমণ করে। এর পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে গত বছর বৃহত্তর সিলেটের শ্রীমঙ্গলে দেশের দ্বিতীয় চা নিলামকেন্দ্র স্থাপিত হয়েছে। শ্রীমঙ্গলে প্রতি মাসে বিশেষ একটি দিনে চা নিলাম অনুষ্ঠিত হয়। ওই নিলামে চট্টগ্রাম থেকে ১৫০-১৮০ নিলাম ডাককারীর শ্রীমঙ্গলে যাতায়াত করতে হয়। কিন্তু সিলেট-চট্টগ্রাম রুটের ট্রেনে এয়ারকন্ডিশন বগি না থাকার কারণে এসব ডাককারীকে চট্টগ্রাম থেকে বিমানযোগে ঢাকা, ফের বিমানযোগে সিলেট হয়ে সড়কপথে শ্রীমঙ্গলে যেতে হয়।’এ ছাড়া সিলেট-ঢাকা রুটে চলাচলকারী ট্রেনগুলোর নাজুক অবস্থার কথা উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী লিখেছেন, ‘২০০৯ সালে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার গঠনের পর থেকে বাংলাদেশের রেলপথ ও রেলসেবার মানের অভূতপূর্ব উন্নয়ন সাধন হয়েছে। বাংলাদেশের জনগণ রেলসেবার এই সুফল ভোগ করলেও সিলেটবাসী অনেকাংশেই বর্তমান এই উন্নত রেলসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।’ তারই সুফল সিলেটবাসী পেতে শুরু করেছেন। সিলেট-চট্টগ্রাম, সিলেট-ঢাকা রুটে যুক্ত হচ্ছে নতুন বগি। চট্টগ্রাম-সিলেট রুটে একটি নতুন ট্রেনও চালু হচ্ছে। সিলেট নগরীর নাগরিক যানবাহন সংকট দূর করতে চালু করা হয়েছে ‘সিটিবাস সার্ভিস। প্রবাসী অধ্যুষিত সিলেটের মানুষ যাতে বিমানবন্দরে হয়রানির শিকার না হোন সে জন্য সকল এয়ারপোর্টে সিসিক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে। প্রবাসে ‘দূতাবাস’ নামক অ্যাপস চালু করা হয়েছে। সেই সাথে প্রতিটি দূতাবাসে ২৪ ঘন্টার হট লাইন ও চালু করা হযেছে

ট্রেন দুর্ঘটনা:
চলতি বছরের ২৩ জুন রাতে কুলাউড়া উপজেলার বরমচালে উপবন এক্সপ্রেসের ৫টি বগি ব্রিজ ভেঙে লাইনচ্যুত হয়। এ ঘটনায় চার যাত্রী নিহত ও শতাধিক আহত হন। এর মাস কয়েক পর ১১ নভেম্বর রাতে ৭০৩ যাত্রী নিয় আখাউড়ায় উদয়ন ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহত হন আরও ১৬ জন। এছাড়াও ছোটখাটো আরও কিছু ট্রেন দুর্ঘটনায় সিলেট রুটে ট্রেন সেবার মান নিয়ে প্রশ্ন দেখা দেয়।
লবণ নিয়ে গুজব:
সিলেট থেকেই শুরু হয়েছিল লবণের দাম বৃদ্ধির গুজব। পরে তা ছড়িয়ে পড়ে সারা দেশে। অবশ্য সরকার ও প্রশাসনের কঠোর হস্তক্ষেপে নিয়ন্ত্রণে আসে লবণের বাজার।

সাগরপথে ইউরোপ যাত্রা:
বছর জুড়ে আলোচনায় ছিল অবৈধপথে সাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপে যাওয়ার পথে সিলেটিদের প্রাণ হারানোর ঘটনা। এ বছরই লিবিয়া ইতালি যাওয়ার পথে ভূমধ্যসাগরের তিউনিসিয়া উপকূলে নৌকাডুবিতে প্রাণ হারান সিলেট বিভাগের ২৭ যুবক। সর্বশেষ ২৫ নভেম্বর মরক্কো থেকে সাগরপথে স্পেনে যাওয়ার পথে নৌকাডুবে এ অঞ্চলের আরও চারজনের মৃত্যু হয়েছে। বিশ্বমিডিয়াও স্থান করে নেয় এসব ঘটনা। পাচারকারীদের ধরতে ট্রাভেল এজেন্সির বিরুদ্ধে প্রশাসন অভিযানে নামলেও এখনো মৃত্যুর মিছিল থামেনি।

রবীন্দ্র শতবর্ষ স্মরণোৎসব:
চলতি বছরের ৫ নভেম্বর হাতে ফুল নিয়ে নদীতীরের চাঁদনিঘাট সিঁড়িতে নামে সিলেটিদের ঢল। এ সিঁড়ি দিয়েই একশ বছর আগে সিলেটে পা রেখেছিলেন নোবেলজয়ী বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। সেই স্মৃতির উদ্দেশ্যে সিলেটে এ বছর পালিত হয় রবীন্দ্র শতবর্ষ স্মরণোৎসব।
রুশনারাদের ব্রিটেন জয়:
যুক্তরাজ্যের সাধারণ নির্বাচনে বাংলাদেশি নারীদের জয়জয়কার। রুশানারা, টিউলিপ, রূপা ও আফসানা, এই চার বাংলাদেশি নারী নিজেদের জনপ্রিয়তার প্রমাণ দেখিয়েছেন লন্ডনের মাটিতে। ব্রিটিশ নির্বাচনে জয়লাভ করা এ চার নারীর মধ্যে দুইজনই সিলেটের। ফলে লন্ডনে ‘সিলটি’দের প্রভাব ছিল আলোচিত।
সিলেট আ’লীগে নেতৃত্বের রদবদল:
এ বছরের ৫ ডিসেম্বর হয়ে গেল সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন। এতে সাবেক কমিটির নেতৃত্বে থাকা অনেকেই বাদ পড়েছেন। একইভাবে দলের কেন্দ্রীয় সম্মেলনে বাদ পড়েছেন সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক। আলোচনায় থাকা নেতাদের পাশ কাটিয়ে নতুন মুখ হিসেবে শফিউল আলম নাদেলকে কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক পদে রাখা হয়েছে। নেতৃত্বের এমন রদবদলে রাজনৈতিক বোদ্ধাদের অনেক সমীকরণ পাল্টে গেছে।
২০২০ সাল বাঙালি জাতির ইতিহাসে একটি নতুন আশাবাদের সাল। বছরটি মুজিব বছর হিসেবে ঘোষিত, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ পালিত হবে। এই পালনটি তখনই সবার কাছে সুখের হবে যখন আমরা অর্থনৈতিকভাবে আমাদের অগ্রগতি আরো সাফল্যের ধারায় এগিয়ে নিতে সক্ষম হবো। ২০২০ সাল যেন সেসব আশাবাদের স্ফুরণ ও বিকাশ ঘটাতে সক্ষম হয় সেই লক্ষ্যেই সরকার ও রাজনীতি সচেতন মহলকে কাজ করতে হবে। ২০১৯-এর অর্জন ও ব্যর্থতা নিয়ে গণমাধ্যমে যথেষ্ট আলোচনা-পর্যালোচনা হয়েছে, প্রত্যাশা ব্যক্ত করা হচ্ছে নতুন বছর হিসেবে ২০২০-এ অনেক কিছু। এটি প্রচলিত ধারার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। পুরাতন বছরে অর্জন ও ব্যর্থতার সালতামামি থেকে প্রত্যাশা ব্যক্ত করা হয় নতুন বছরের বেশি বেশি যেন সাফল্য জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে অর্জিত হয়। এবারো তার ব্যতিক্রম কিছু হচ্ছে না। পৃথিবীতে নতুন বছর নিয়ে মানুষের নানা প্রত্যাশার কথা শোনা যাবে বছর শেষে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin