শনিবার, ০৬ মার্চ ২০২১, ১১:৩৫ অপরাহ্ন

৮০জন বান্ধবীর অ্যাকাউন্টে টাকা জমা রাখতেন পিকে হালদার

৮০জন বান্ধবীর অ্যাকাউন্টে টাকা জমা রাখতেন পিকে হালদার


শেয়ার বোতাম এখানে
  • 9
    Shares

শুভ প্রতিদিন ডেস্ক:
প্রশান্ত কুমার হালদারের বিরুদ্ধে তদন্তের অগ্রগতিতে জানা গেল তার ৮০ জন বান্ধবী আছে। কিন্তু তার পাচার করা টাকাসহ তাকে দেশে ফিরিয়ে আনার কোনো খবর নাই।

লিজিং কোম্পানি দিয়ে জালিয়াতি করে সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা পাচার করে পিকে হালদার এখন কানাডায় আছেন। সেখানেও তিনি সম্পদ গড়ে তুলেছেন। এই টাকার পরিমাণ ১০ হাজার কোটি টাকা হবে বলে মনে করছেন দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম।

তিনি জানান, মামলার তদন্ত পর্যায়ে অনেকেই তার কাছে এসেছেন অভিযোগ নিয়ে। তাদের মধ্যে সাবেক বিচারকের মেয়ে, সাবেক একজন পররাষ্ট্র সচিব, সাবেক আমলাসহ আরো সমাজের অনেক গণ্যমান্য ব্যক্তি আছেন। ক্ষতিগ্রস্তরাই খুরশীদ আলমকে তথ্য দিয়েছেন যে পিকে হালদার অবিবাহিত এবং তার কমপক্ষে ৮০ জন বান্ধবী আছে। তাদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে পিকে হালদার টাকা জমা রাখতেন।

খুরশীদ আলম জানান, “পিকে হালাদারের বান্ধবীরা দেশেই আছেন বলে জানতে পেরেছি। তাদের নাম ঠিকানা পেয়েছি। তাদের তদন্তের মুখোমখি হতে হবে। তাদের ব্যাপারে গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্ট আমাদের হাতে আছে। তাদের অ্যাকাউন্টে পিকে হালদার টাকা পাঠাতেন।”

কিন্তু পিকে হালদার ও পাচার করা অর্থ ফিরিয়ে আনার তদন্ত কতদূর জানতে চাইলে তিনি বলেন, “তাকে ইন্টারপোলের মাধ্যমে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা পাঠানো হয়েছে।” এর আগে পিকে হালদার দেশে ফিরে আত্মসমর্পণ করে টাকা ফিরিয়ে দেয়ার যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তার আর কোনো অগ্রগতি নাই।

টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান মনে করেন, পিকে হালাদারের বান্ধবীরা এই মামলার জন্য গুরুত্বপূর্ণ। এখানে আরো একটা বিষয় স্পষ্ট হয়েছে মানি লন্ডারিং-এ এধরনের ব্যাংক হিসাব ব্যবহার করা হয়।তাহলে ব্যাংকের দায়দায়িত্ব আছে।

তিনি বলেন, “পিকে হালদারের বান্ধবীদের ব্যাপারে আরো গভীর তদন্ত হলে অনেক গোপন তথ্য বেরিয়ে আসতে পারে।”

যারা দেশের বাইরে অর্থ পাচার করেছেন তাদের একটি তালিকা চেয়েছিলো হাইকোর্ট। দুদক গত সপ্তাহে যে ২৮ জনের তালিকা দিয়েছে তা নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন আদালত। দুদক আসলে যে ২৮ জনের তালিকা দিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে মামলা চলমান। আর তাদের তথ্য সংবাদ মাধ্যমে আগেই ছাপা হয়েছে। আর এই তালিকায় বিএনপির দুই-একজন রাজনীতিবিদ ছাড়া আর উল্লেখযোগ্য কারুর নাম নাই। আদালত তাদের নতুন করে তালিকা দিতে বলেছেন। সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মনজিল মোরসেদ বলেন, “‘আদালত এই সময়ে আলোচিত অর্থ পাচারকারীদের ব্যপারের বিস্তারিত তথ্য জানতে চেয়েছিলেন। কিন্তু দুদক তা এড়িয়ে গেছে। দেশ থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা পাচার হয়। সবাই তাদের চেনেন। কিন্তু দুদক কোনো তথ্য দিচ্ছে না।”

এনবিআরসহ সরকারের আরো কয়েকটি প্রতিষ্ঠানকে তালিকা দিতে বলা হলেও তারা এখন পর্যন্ত দেয়নি। দুদক সম্প্রতি বিভিন্ন দেশ থেকে ৫০ জনের পাচার করা অর্থের তথ্য এনেছে। তার মধ্যে আওয়ামী লীগেরও বেশ কয়েকজন সংসদ সদস্য রয়েছেন। তাদের তালিকা হাইকোর্টে দেয়া হয়নি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনের অধ্যাপক শেখ হাফিজুর রহমান কার্জন বলেন, “দেশে টপ টু বটম যে হাজার হাজার কোটি টাকার দুর্নীতি হয় তার তুলনায় দুদকের তৎপরতা কিছুই না। তাদের আবার দ্বিচারিতা আছে। তার কাউকে ধরে আবার কাউকে ছাড় দেয়। রাজনীতিবিদ, আমলা এবং ব্যবসায়ীদের সমন্বয়ে দুর্নীতির একটি শক্তিশালী চক্র আছে এদেশে। রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানে তাদের সহায়তা করার লোক আছে। তারা টাকা পাচার করে। বিদেশে যায় আবার দেশে ফিরে আসে। ফলে মূল দুর্নীতিবাজেরা ধরা পড়ে না।”

ড. ইফতেখারুজ্জামান মনে করেন দুর্নীতি দমনে দুদকের তিন ধরনের দুর্বলতা আছে। আর তা হলো: সক্ষমতার ঘাটতি, সমন্বয়ের ঘাটতি এবং সৎ সাহসের ঘাটতি। তিনি বলেন, “পিকে হালদারে যোগাযোগ কোথায় জানি না। কিন্তু অনেক সময়ই অর্থ পাচারের সাথে যারা জড়িত তারা ক্ষমতাবান। তাদের আর্থিক এবং রাজনৈতিক ক্ষমতা আছে। তাই যত কথা হয় বাস্তবে কাজ হয় না। তাদের বিচারের আওতায় আনার সৎ সাহস কতটা আছে সেটাই প্রশ্ন।”

আর মনজিল মোরসেদ বলেন, “দুদক, অ্যাটর্নি জেনারেল অফিস এগুলো তো সরকারেই প্রতিষ্ঠান। দুর্নীতি ও অর্থ পাচারের সাথে সরকারের টপ লেভেলের যারা জড়িত, সরকারি দলের যারা প্রভাবশালী তাদের বিরুদ্ধে কি তারা ব্যবস্থা নিতে পারবে? পারার কথা না।” তবে তিনি মনে করেন, “হাইকোর্ট যেভাবে এখন চাপ সৃষ্টি করছে এটা অব্যাহত থাকলে পাচারকারীদের নাম দেশের মানুষ জানতে পারবেন।”

প্রসঙ্গত, গ্লোবাল ফাইনান্সিলিয়াল ইন্টিগ্রিটির(জিএফআই) তথ্য অনুযায়ী বাংলাদেশ থেকে গড়ে বছরে প্রায় এক লাখ কোটি টাকার পাচার হয়। সূত্র: ডয়েচে ভেলে।



শেয়ার বোতাম এখানে
  • 9
    Shares

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin