শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ১১:৪৫ অপরাহ্ন



শায়েস্তাগঞ্জে ডাক্তার সংকটে দিশেহারা রোগীরা

শায়েস্তাগঞ্জে ডাক্তার সংকটে দিশেহারা রোগীরা


কামরুজ্জামান আল রিয়াদ,শায়েস্তাগঞ্জ: শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলায় করোনা ভাইরাসের আতঙ্কের প্রাইভেট চেম্বার বন্ধ করে দিয়েছেন ডাক্তাররা।
এদিকে সরকারি হাসপাতাল ও ডাক্তার না থাকায় ও করোনা ভাইরাস ভীতিতে হাসপাতালে না গিয়ে প্রাইভেট চেম্বার ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ভীড় করছে ডায়াগনস্টিক সেন্টারের চেম্বারে রোগী দেখেন। পার্শ্ববর্তী উপজেলা থেকে প্রতিদিন শতাধিক রোগী ডাক্তার দেখাতে ওইসব প্রাইভেট চেম্বার ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে আসেন।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, উপজেলার পিপলস মেডিকেল সার্ভিস,গাউছিয়া ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও মেডিল্যাব ডায়াগনস্টিক সেন্টার সহ উপজেলার অন্যান্য বাজারে বিভিন্ন প্রাইভেট চেম্বারে ডাক্তাররা রোগী দেখছেন না।

করোনা ভাইরাসের কারণে সারা দেশের মতোও শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলাও অঘোষিত লকডাউনে রয়েছে। চলমান পরিস্থিতিতে বন্ধ রয়েছে প্রত্যেক ডাক্তারের চেম্বার ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার। এমন অবস্থায় টাকার বিনিময়েও চিকিৎসা সেবা পাচ্ছেন না রোগীরা।

রোগীদের অনেকেই বলছেন করোনা ভাইরাস আতঙ্কে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে না গিয়ে প্রাইভেট চেম্বারে এসেছেন। কিন্তু এখানেও ডাক্তার নাই। শুক্র ও শনিবার ঢাকা ও সিলেট থেকে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা চিকিৎসা দিতে না আসায় তাদের চেম্বার গুলো বন্ধ রয়েছে। এতে চেম্বারে আগত বিভিন্ন জটিল রোগে আক্রান্ত রোগীরা চিকিৎসা না পেয়ে বিপাকে পড়েছেন। এমনটি চলতে থাকলে বিনা চিকিৎসায় মারা যাবেন উপজেলার অনেক রোগী।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছিুক কয়েক জন চিকিৎসক জানান চিকিৎসকরাও মানুষ, তাদেরও পরিবার-পরিজন রয়েছেন। তাই চিকিৎসকরাও এক রকম আতঙ্কিত। যার কারণে অনেক চিকিৎসক ব্যক্তিগত চেম্বার ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে আসা বন্ধ করে দিয়েছেন।

শায়েস্তাগঞ্জ পিপলস মেডিকেল সার্ভিস সেন্টারের পরিচালক আমিনুল আনোয়ার বলেন, আমাদের এখানে কোন ডাক্তার চেম্বার না করায় এবং নিরাপত্তা সরঞ্জাম (পি.পি.ই) সংগ্রহ করতে না পারায় নিরাপত্তার স্বার্থে তারা ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধ রেখেছেন।

শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার মধ্য অলিপুরে প্রাণ আর এফ এল গ্রুপের সান হেলথ কেয়ার হাসপাতাল ও পৌরসভার ওয়ার্কসপ এলাকায় ডাঃ মোঃ মোতালিবের দিগন্ত ডায়াগনস্টিক সেন্টার খোলা রয়েছে। আর সবগুলো ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও প্রাইভেট চেম্বার বন্ধ রয়েছে।

অন্যদিকে পল্লী চিকিৎসকরা চেম্বার খুলা রাখায় কিছুটা হলেও চিকিৎসা সেবা নিতে পারতেছে লোকজন ।

এ ব্যাপারে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ সাদ্দাম হোসেন বলেন শায়েস্তাগঞ্জে উপজেলা হাসপাতাল এখনো নির্মান হয়নি। আমারও লোকজন নাই। তবুও আমি সাধ্যমতে চেস্টা করছি যাতে একজন রোগীও চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত না হয়।

এই উপজেলার লোকজনের ডাক্তার দেখনোর জায়গা প্রাইভেট চেম্বার ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার গুলো। কিন্তু দেশে করোনা ভাইরাস দেখা দেয়ার পর থেকে প্রাইভেট চেম্বার ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার গুলো বন্ধ থাকায় রোগীরা পড়ছে চরম বিপাকে।

চিকিৎসার জন্য তাদের ১৫ কিলোমিটার পাড়ি দিয়ে হবিগঞ্জে গিয়ে সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ডাক্তার দেখাতে হচ্ছে। অঘোষিত লকডাউন থাকায় হবিগঞ্জে যাতায়াত করা এক রকম যুদ্ধের সমান।

এ বিষয়ে হবিগঞ্জের ডেপুটি সিভিল সার্জন ডাঃ মুখলিছুর রহমান উজ্জল জানান, সরকারি হাসপাতালগুলোতে যথাসাধ্য চিকিৎসা সেবা চালিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
হঠাৎ করে প্রাইভেট চেম্বার ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার গুলোতে রোগী দেখা বন্ধ করা অমানবিক।

এছাড়াও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী নির্দেশে যেসব ডাক্তার রোগী দেখছেন তাদের তালিকা তৈরী করা হচ্ছে। করোনায় আক্রান্ত রোগীদের সেবাদান কারী ডাক্তারদের কে বিশেষ পুরস্কারও দিবেন প্রধানমন্ত্রী। আর যারা রোগী দেখছেন না তাদের বিরুদ্ধে আইননানুক ব্যবস্থা করা হবে।


সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin