বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২, ০৬:০৩ পূর্বাহ্ন


সিলেট তামাবিল স্থলবন্দরে ‘অটো এসএমএস’ চালুর প্রতিবাদে আমদানি বন্ধ

সিলেট তামাবিল স্থলবন্দরে ‘অটো এসএমএস’ চালুর প্রতিবাদে আমদানি বন্ধ


শেয়ার বোতাম এখানে

শুভ প্রতিদিন ডেস্ক:

‘অটো এসএমএস’ সফটওয়্যার চালুর প্রতিবাদে সিলেটের তামাবিল স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি বন্ধ করে দিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। তাদের যুক্তি, এ সফটওয়্যার চালুর ফলে সময় অপচয় হয়। ফলে অনেক গাড়ি বন্দর পাড়ি দিতে পারে না। অন্যদিকে বন্দর কর্তৃপক্ষ বলছে, শুরুতে সময় একটু বেশি লাগতে পারে। তবে সফটওয়্যারের কারণে ব্যবসায়ীরা ঘরে বসেই তাদের আমদানির সব তথ্য পেয়ে যাবেন। এতে তাদের সুবিধাই হবে।

তামাবিল বন্দর দিয়ে প্রতিদিন ৮ শতাধিক ট্রাকে প্রায় ১০ হাজার টন পাথর আমদানি হয়, যার বাজারমূল্য ২ কোটি টাকার মতো। অন্যান্য পণ্য মিলিয়ে এ বন্দরে রাজস্ব খাতে প্রতিদিন জমা হয় প্রায় ৫০ লাখ টাকা। কিন্তু আমদানি বন্ধ থাকায় সরকার রাজস্ব হারাচ্ছে। বেকায়দায় পড়েছেন পাথর ও অন্যান্য পণ্য লোড-আনলোড, পরিবহন এবং পাথর ভাঙার সঙ্গে যুক্ত শ্রমিকরা।

বন্দর কর্তৃপক্ষ ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সীমান্তের দুপাশেই এতদিন চালু ছিল ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে মাপজোখ। অবকাঠামোগত উন্নয়নের অংশ হিসেবে তামাবিল স্থলবন্দরে বসানো হয়েছে ওজন মাপার অত্যাধুনিক স্কেল। তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের পরামর্শে গত ৭ জানুয়ারি থেকে বন্দরে চালু হয় ‘অটো এসএমএস’ সফটওয়্যার। এতে প্রতিটি গাড়িকে বন্দরে এসে নতুন করে পুরো আমদানির তথ্য দিতে হবে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, এতে বাড়বে ঝক্কি ও ক্ষতির পরিমাণ। কেননা প্রতিটি তথ্য নতুন করে দিয়ে একেকটি গাড়ির বন্দর পার হতে অন্তত ১০ মিনিট সময় লাগবে। এতে দিনে সর্বোচ্চ ২০০ গাড়ি সীমান্ত পার হতে পারবে। আর ৫ শতাধিক গাড়ি সীমান্তে আটকে থাকবে।

তামাবিল পাথর, কয়লা ও চুনাপাথর আমদানিকারক গ্রুপের সভাপতি লিয়াকত হোসেন বলেন, ‘পাথরই তামাবিল বন্দর দিয়ে আমদানি করা প্রধান পণ্য। ভারতের ব্যবসায়ীরা পাথর রপ্তানি করে থাকেন ফিতা দিয়ে মেপে। ফিতা দিয়ে মাপা এবং বোল্ডার পাথর আমদানি করার কারণে ওজনে হেরফের হয়। বোল্ডার পাথরের সঙ্গে থাকা পানি ও মাটিও ওজনের হেরফের ঘটায়। ফলে ভারত থেকে ম্যানুয়াল পদ্ধতির কাগজ নিয়ে এসে বাংলাদেশ বন্দরে বেকায়দায় পড়তে হবে আমদানিকারকদের। সব তথ্য নতুন করে দেওয়ার সঙ্গে ওজনের তারতম্যের জন্য গুণতে হবে জরিমানা। ওজনে কম হলেও দিতে হবে নির্ধারিত ওজনের টাকা।’

লিয়াকত হোসেন মনে করেন, ভারতের ব্যবসায়ীরাও এত ঝামেলা নিয়ে পাথর রপ্তানিতে আগ্রহ হারিয়ে ফেলবেন। এ ব্যাপারে বন্দর কর্তৃপক্ষ বরাবর লিখিত আবেদন করে সাড়া না পেয়ে ব্যবসায়ীরা আমদানি বন্ধ করে দিয়েছেন।

তামাবিল স্থলবন্দরের উপপরিচালক মো. মাহফুজুল ইসলাম ভূঁইয়া বলেন, ‘নতুন পদ্ধতিতে শুরুতে একটু বেশি সময় লাগতে পারে। তবে এ পদ্ধতি চালু হলে ব্যবসায়ীরা ঘরে বসেই তাদের আমদানির সব তথ্য পেয়ে যাবেন। এতে তারাই উপকৃত হবেন।’


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin