বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:৪২ পূর্বাহ্ন


তিনদিনের ব্যবধানে ফেঞ্চুগঞ্জে দুই খুন

তিনদিনের ব্যবধানে ফেঞ্চুগঞ্জে দুই খুন


শেয়ার বোতাম এখানে

শুভ প্রতিদিন ডেস্ক:

সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জে তিনদিনের ব্যবধানের দুটি হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। খুন হয়েছেন ক্ষুদ্রঋণ বিতরণকারী সংস্থা ‘আশা’র এক ব্যবস্থাপক ও এক দোকান কর্মচারী।

গত রোববার ও বুধবার মধ্যরাতে তিনদিনের ব্যবধানে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন, ক্ষুদ্র ঋণ বিতরণকারী সংস্থা ‘আশা’র এক ব্যবস্থাপক আবুল কাশেম(৪৮) ও ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার ঘিলাছড়া ইউনিয়নের মোকামবাজারের দোকান কর্মচারী প্রতিবন্ধী সজল বিশ্বাস(৩৮)।

গত রোববার বেলা সোয়া ১১টার দিকে উপজেলার মাইজগাঁও ইউনিয়নের পুরানবাজার নিজামপুর এলাকায় সংস্থাটির শাখা কার্যালয়ে এই ঘটনা ঘটে।

আবুল কাশেম সংস্থাটির জ্যেষ্ঠ শাখা ব্যবস্থাপক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তিনি হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার খবিলাশপুর গ্রামের বাসিন্দা। পুলিশ ধারণা করছে, ব্যবস্থাপক ও অফিস সহকারীর মধ্যে কোনো বিষয় নিয়ে বিরোধের জেরে এই হত্যাকাণ্ড ঘটতে পারে।

পুলিশ ও স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সকালে আশার ফেঞ্চুগঞ্জ শাখা কার্যালয় থেকে সংস্থাটির কর্মকর্তা-কর্মচারীরা নিজ নিজ কাজে বিভিন্ন এলাকায় চলে যান। তখন ব্যবস্থাপক আবুল কাশেম ও কার্যালয়ের অফিস সহকারী কাম বাবুর্চি মো. ফজল মিয়া (৩৬) কার্যালয়ে ছিলেন। প্রাথমিকভাবে পুলিশ ধারণা করছে, ব্যক্তিগত কোনো বিরোধের জেরে নৃশংসভাবে আবুল কাশেমকে কুপিয়ে হত্যা করেছেন ফজল মিয়া। পরে তিনি পালিয়ে যান। পালানোর সময় নিজের ব্যবহৃত মুঠোফোনটি কার্যালয়েই ফেলে যান তিনি। তার বাড়ি সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলায়। পুলিশ হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত দা উদ্ধার করেছে।

এদিকে, পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ফেঞ্চুগঞ্জ মোকামবাজারের ওই দোকানেই সজল বিশ্বাস রাত যাপন করতেন। প্রতিদিনের মতো গত বুধবার রাতে দোকানের ভেতরেই ছিলেন। রাত সাড়ে ১২টার দিকে হঠাৎ চিৎকার-চেঁচামেচির শব্দে আশপাশের ব্যবসায়ী ও স্থানীয় বাসিন্দারা জেগে ওঠেন। পরে তাঁরা নিশী বাবুর দোকানটি খোলা দেখে সেখানে গিয়ে দেখেন সুবল বিশ্বাসের লাশ পড়ে আছে। খবর পেয়ে পুলিশ গতকাল রাতেই ঘটনাস্থল থেকে লাশটি উদ্ধার করে।

পুলিশ জানায়, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে সজল বিশ্বাসকে শ্বাস রোধ করে হত্যা করা হয়েছে। নিহত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তবে এ ঘটনায় এখনো কোনো মামলা হয়নি।

ফেঞ্চুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাফায়েত হোসেন বলেন, সজল বিশ্বাস হত্যাকান্ডের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে পুলিশ ইতিমধ্যেই পাঁচজনকে আটক করেছে। ওই রাত থেকেই পুলিশের অভিযান চলমান। দ্রুততম সময়ের মধ্যে হত্যার রহস্য উন্মোচন করা যাবে বলে আশা করছেন তিনি। ক্ষুদ্র ঋণ বিতরণকারী সংস্থা ‘আশা’র ব্যবস্থাপক আবুল কাশেম হত্যাকান্ডের ঘটনায় অভিযুক্ত ব্যক্তি পলাতক। তাকে গ্রেপ্তার জন্য পুলিশের কয়েকটি টিম অভিযান চালাচ্ছে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin